ওয়েব ডেভেলাপমেন্ট-এ ক্যারিয়ার

ওয়েব ডেভেলাপমেন্ট শব্দটা শুনে অনেকেই নাক সিঁটকায়, ‘ও, ওয়েবসাইট বানানো? এটা কোনো কাজ হলো?’ তো এরকম ভুল ধারণা থাকাটা দোষের কিছু না। তাই আজকে ওয়েব ডেভেলাপমেন্টের ক্যারিয়ার নিয়ে কিছু আলোচনা করবো।

একটিমাত্র পেইজ দিয়েও একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়, আবার ওয়েবসাইটটি ফেসবুকের মতো বিশাল হতে পারে। তাই কাজের পরিধি নির্ভর করবে ওয়েবসাইটের পরিধির ওপর। এখন কোনো ওয়েব সাইট বা ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরির প্রথম কাজ হচ্ছে ফিচারগুলো নির্দিষ্ট করা, মানে সেখানে কী কী ফিচার থাকবে তার একটি তালিকা তৈরি করা। তখন ইউএক্স বা ইউজার এক্সপেরিয়েন্সের বিষয়গুলোও খেয়াল রাখতে হবে। কারণ কেবল ফিচার থাকলেই হবে না, সেই ফিচার ব্যবহারকারীরা কিভাবে ব্যবহার করবে, সেটাও নির্ধারণ করতে হবে। ফিচারগুলো নির্দিষ্ট করা হয়ে গেলে প্রথম কাজ হচ্ছে ওয়েবসাইটটি ডিজাইন করা। মানে ওয়েবসাইটি দেখতে কেমন হবে। এই ডিজাইনের কাজটি করেন ওয়েব ডিজাইনার বা গ্রাফিক্স ডিজাইনার। সৃজনশীলতা ছাড়াও একজন ডিজাইনারের আধুনিক ওয়েবসাইটের ডিজাইন, রং, ফন্ট ইত্যাদি বিষয়ে সম্যক ধারণা থাকতে হবে। ওয়েব ডিজাইনাররা সাধারণত ফটোশপ এবং ইলাস্ট্রেটর সফটওয়্যার ব্যবহার করেন, তাই এ দুটি সফটওয়্যার ব্যবহারে দক্ষতা থাকা প্রয়োজন।

ডিজাইনের পরবর্তি কাজ হচ্ছে মার্ক-আপ। মানে ডিজাইনার যেই ডিজাইনটি করেছেন, সেটি থেকে এইচটিএমএল (HTML → Hyper Text Markup Language) ফাইল তৈরি করা। তবে শুধু HTML এর কাজই যথেষ্ট নয়। সাথে দরকার CSS (Cascading Style Sheet)। সিএসএস ব্যবহার করে এইচটিএমএল ফাইলে স্টাইল আনা যায় যাতে ওয়েবসাইট দেখতে হুবুহু তার ডিজাইনের মতো হয়। এই কাজগুলো করেন মার্ক-আপ ইঞ্জিনিয়ার।

বড় কোম্পানীগুলোতে মার্ক-আপ ইঞ্জিনিয়ার এর আলাদা পোস্ট থাকে, তবে অনেক জায়গাতেই সেই কাজটা করতে হয় ফ্রন্ট এন্ড (front end) ইঞ্জিনিয়ারের। তবে ফ্রন্ট-এন্ড ইঞ্জিনিয়ারের মূল কাজ হচ্ছে জাভাস্ক্রিপ্টে। জাভাস্ক্রিপ্ট একটি প্রোগ্রামিং ভাষা যেটি ব্যবহার করে প্রোগ্রাম লিখলে সেটি ব্রাউজার থেকে চলে। ইন্টারএকটিভ ওয়েবসাইগুলোর জন্য জাভাস্ক্রিপ্ট অপরিহার্য। এই ভাষাটি জানতে হয় ফ্রন্ট এন্ড ইঞ্জিনিয়ারের। সাথে কয়েকটি ফ্রেমওয়ার্কও। যেমন জেকুয়েরি (jQuery), ইএক্সটিজেএস (ext-js), প্রটোটাইপ (prototype) ইত্যাদি। এসব জানার পাশাপাশি ওয়েব টেকনোলজির নানা বিষয় সম্পর্কেও স্বচ্ছ ধারণা থাকা দরকার। যেমন এক্সএমএল (XML), জেসন (JSON), এজাক্স (Ajax), ক্লায়েন্ট-সার্ভার ইন্টারএকশন ইত্যাদি।

ওয়েবসাইটে ব্যবহারকারির দেওয়া ইনপুটের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন কাজ হয়। যেমন ফেসবুকে কেউ একটা স্ট্যাটাস দিলো, সেটি তার ফেসবুক বন্ধুতালিকার সবাই দেখতে পাবে, আর পাবলিক হলে ফলোয়ারদের নিউজফিডেও চলে যাবে। এই কাজটি করার জন্য সার্ভারে কিছু কোড লেখা লাগে। আবার ধরা যাক, কেউ অনলাইনে কেনাকাটা করছে, সেখানেও সার্ভারে বেশ কিছু কোড রান করে। সার্ভারে এই প্রোগ্রামগুলো যিনি তৈরি করেন, তাকে বলা হয় ব্যাক-এন্ড ইঞ্জিনিয়ার (back-end engineer)। ব্যাক-এন্ডের কাজের জন্য জনপ্রিয় প্রোগ্রামিং ভাষা হচ্ছে পিএইচপি (PHP), পাইথন (Python), রুবি (Ruby), জাভা (Java) ইত্যাদি। একজন ভালো ব্যাক-এন্ড ইঞ্জিনিয়ারের কেবল প্রোগ্রামিং করতে পারাটাই যথেষ্ট নয়, সেই সাথে ওয়েব নিরাপত্তা, ডাটাবেজ, ওয়েব আর্কিটেকচার এরকম নানান বিষয়ে গভীর জ্ঞান থাকা দরকার। আবার ওয়েবসাইটকে স্কেলেবল (scalable) করাটাও তার কাজের মধ্যে পড়ে। একটি উদাহরণ দিই। প্রতি বছর বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল যখন প্রকাশ হয়, ওয়েবসাইটে ঢুকলে মনে হয় সাইট হ্যাং হয়ে আছে – কোনো কাজ করছে না। তার মূল কারণ হচ্ছে এসব ওয়েবসাইট যেভাবে তৈরি করা হয়েছে, সেগুলো স্কেলেবল নয়। হয়ত ১০০ ব্যবহারকারির জন্য ওয়েবসাইট কাজ করছে, কিন্তু যখনই দশ হাজার কিংবা এক লক্ষ মানুষ সেই ওয়েবসাইটে হিট করছে, তখন ওয়েবসাইট আর কাজ করছে না, কারণ এত লোড সে সামলাতে পারছে না। একজন ভালো ব্যাক-এন্ড ইঞ্জিনিয়ারের পক্ষে এই সমস্যাটির সমাধান সম্ভব।

যেসমস্ত ওয়েবসাইট খুব বেশি ডাটা নির্ভর, সেখানে ডাটাবেজ ডিজাইন ওয়েবসাইটের পারফরমেন্সের উপর বেশ প্রভাব ফেলে। অনেকসময় ব্যাক-এন্ড ইঞ্জিনিয়ার ডাটাবেজের কাজ করলেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয় একজন দক্ষ ডাটাবেজ আর্কিটেক্ট-এর। তিনি ডাটাবেজ ডিজাইন এবং অপটিমাইজেশনের কাজ করে থাকেন।

একটা ওয়েব সাইট বা ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরির শেষ ধাপ হচ্ছে টেস্টিং। টেস্টিংয়ের কাজটি করেন ওয়েবসাইট টেস্ট ইঞ্জিনিয়ার কিংবা কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্সের লোকজন। সাধারণ ওয়েবসাইটে যেমন ওয়েবসাইট ঠিকমতো কাজ করছে কি না সেটি টেস্ট করলেই চলে, কিছু কিছু ওয়েবসাইটে আবার লোড টেস্ট করতে হয়, যে অনেক বেশি ব্যবহারকারি একসাথে আসলে ওয়েবসাইটের কি অবস্থা হয়। আর নিরাপত্তার ব্যাপারটিও টেস্ট করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই ওয়েবসাইটের প্রকার ভেদে বিভিন্ন লেভেলের দক্ষতার লোকজন দরকার হয়, যারা ওয়েবসাইটি টেস্ট করেন।

সার্ভারে বিভিন্ন সফটওয়্যার ইনস্টল করা, সেগুলো রান করা, মনিটর করা, সার্ভারের সংখ্যা বাড়ানো-কমানো, ফায়ারওয়াল বসানো ইত্যাদি কাজের জন্য দরকার একজন সিস্টেম এডমিনিসস্ট্রের। যিনি বিভিন্ন টুল ব্যবহার করে সেই কাজগুলো করেন। সিস্টেম এডমিনিসস্ট্রেটর-এর নখদর্পনে থাকতে হয় সার্ভারের অপারেটিং সিস্টেমের নানান বিষয়।

তাহলে দেখা যাচ্ছে একটি বড় ওয়েবসাইট বা ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরিতে অনেক আয়োজন আর সেই কাজগুলো করার জন্য প্রয়োজন হরেক রকম দক্ষতাসম্পন্ন মানুষের। আপনি যদি ওয়েব ডেভেলাপমেন্টে আগ্রহী হন তবে আপনার দক্ষতা, লেখপড়া ও আগ্রহের ভিত্তিতে নির্বাচন করুন সঠিক ক্যারিয়ার।

পুনশ্চ : ওয়েবের উপর ধারণা আরো পাকাপোক্ত করতে এই ফ্রি অনলাইন কোর্সটি করে ফেলুন : http://dimikcomputing.com/course/web-concepts/। কোর্সটি সম্পূর্ণ বাংলায়।

Facebook Comments

Leave a Reply