ডেনিস রিচি – সি ও ইউনিক্সের জনক

আমরা যারা কম্পিউটার প্রোগ্রামিং করি , তাদের অনেকেরই প্রোগ্রামিং-এ হাতেখড়ি হয় সি প্রোগ্রামিং ভাষার মাধ্যমে। এই লেখায় আমরা জানবো সি প্রোগ্রামিং এর জনক ডেনিস রিচি সম্পর্কে।

ডেনিস রিচি ১৯৪১ সালের ৯ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কের ব্রনস্সভিল শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পুরো নাম ডেনিস  ম্যাকএলিস্টেয়ার রিচি। তাঁর নামের তিনটি অংশের আদ্যক্ষর নিয়ে তিনি ডিএমআর (DMR) নামের পরিচিত ছিলেন। তাঁর বাবা এলিস্টেয়ার ই. রিচি  ছিলেন বেল ল্যাবের একজন বিজ্ঞানী এবং সুইচিং সার্কিট তত্ত্বের বই “The Design of Switching Circuits”-এর সহ লেখক।

রিচির জন্ম নিউইয়র্কে হলেও তাঁর শৈশবেই তাঁর বাবা-মা নিউ জার্সিতে চলে যান। সেখানকার সামিট হাই স্কুল-এ (Summit High School)  তিনি পড়াশোনা করেন। সেখানকার পড়াশোনার পাঠ শেষ হবার পর তিনি স্নাতক ভর্তি হন জিনিয়াসদের সূতিকাগার হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানকার পদার্থবিজ্ঞান এবং ফলিত গণিত বিভাগ থেকে স্নাতক শেষ করার পর ১৯৬৭ সালে তিনি যোগদান করেন বেল রিসার্চ ল্যাব-এ। ১৯৬৮ সালে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি “Program Structure and Computational Complexity”  টপিকে প্যাট্রিক সি ফিশারের তত্ত্বাবধানে পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেন। যদিও তিনি অফিসিয়ালি তাঁর পিএইচডি ডিগ্রী কখনো গ্রহণ করেননি।

সি প্রোগ্রামিং ভাষার উদ্ভাবক এবং ইউনিক্স অপারেটিং সিস্টেমের শুরুর দিকের অবদানকারীদের মধ্যে ডেনিস রিচির নাম উল্লেখযোগ্য। তবে রিচি সবচেয়ে বেশি পরিচিত সি প্রোগ্রামিং ভাষার উপর রচিত বই “The C programming Language” বইয়ের সহ লেখক হিসেবে। এই বইয়ের লেখকদ্বয় কার্নিংহাম ও রিচি তাঁদের দুজনের নামের আদ্যক্ষর K&R দিয়েই সুপরিচিত।

সি প্রোগ্রামিং বইয়ের প্রথম সংস্করণের প্রচ্ছদ (ছবি : উইকি কমন্স)
সি প্রোগ্রামিং বইয়ের প্রথম সংস্করণের প্রচ্ছদ (ছবি : উইকি কমন্স)

সি প্রোগ্রামিং ভাষার উদ্ভাবন এবং কেন(Ken) থম্পসনের সঙ্গে ইউনিক্সের উন্নয়নে তাঁর অবদান রিচিকে আধুনিক কম্পিউটার বিজ্ঞানের অগ্রনায়ক হিসেবে চিহ্নিত করেছে। এপ্লিকেশন ও অপারেটিং সিস্টেম এবং এমবেডেড সিস্টেম উন্নয়নে ব্যবহার হওয়ার পাশাপাশি সি প্রোগ্রামিং ভাষা অন্যান্য প্রোগ্রামিং ভাষাকেও প্রবলভাবে প্রভাবিত করেছে। একই ভাবে আধুনিক কম্পিউটিং-এর বিকাশে ইউনিক্স সিস্টেমের অবদান অনস্বীকার্য।

Ken n dennis.jpg
কেন থমসনের সাথে ডেনিস রিচি (ডানে) (ছবি : উইকি কমন্স)

১৯৮৩ সালে রিচি এবং থম্পসন যৌথভাবে  টুরিং পুরস্কার লাভ করেন। তাঁদেরকে জেনেরিক অপারেটিং সিস্টেমের তত্ত্ব বিশেষ করে ইউনিক্সে তা প্রয়োগ করার কারণে” এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়। পুরস্কার প্রাপ্তিতে রিচি “রিফ্লেকশন অন সফটওয়্যার রিসার্চ (Reflections on Software Research)” নামে বক্তৃতা দেন।

সি প্রোগ্রামিং ভাষার উদ্ভাবন ও ইউনিক্সের উন্নয়নে অবদানের জন্য রিচি ১৯৮৮ সালে আমেরিকার ন্যাশনাল একাডেমি অব ইঞ্জিনিয়ারিং-এ নির্বাচিত হন। একই ক্ষেত্রে অবদানের জন্য রিচি এবং থম্পসন ১৯৯০ সালে ইনস্টিটিউট অফ ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ার্স (IEEE) প্রবর্তিত আইইই রিসার্চ ডব্লিউ হামিং পদক লাভ করেন।

সি প্রোগ্রামিং ভাষা এবং উইনিক্স অপারেটিং উদ্ভাবনের মাধ্যমে কম্পিউটার হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার, নেটওয়ার্কিং, এবং সিমুলেশন ইত্যাদি ক্ষেত্রসমূহে বিশেষ অগ্রগতি লাভ করা সম্ভব হয় এবং এর মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্ব দিতে থাকে। এই অবদানের জন্য খম্পসন ও রিচি ১৯৯৮ সালে আমেরিকার জাতীয় প্রযুক্তি পদকের (National Medal of Technology) জন্য নির্বাচিত হোন। ১৯৯৯ সালের ২১ এপ্রিল আমেরিকার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন তাঁদের হাতে এ পদক তুলে দেন।

২০০৫ সালে Industrial Research Institute ডেনিস রিচিকে তথ্য প্রযুক্তিতে অবদানের জন্য IRI Achievement Award এ ভূষিত করে।

ইউনিক্স অপারেটিং সিস্টেম উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা পালনের জন্য ২০১১ সালে রিচি ও থম্পসন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতে জাপান পুরস্কার লাভ করেন।

ডেনিস রিচি ২০১১ সালের ১২ অক্টোবর , বার্কলে হাউজ, নিউ জার্সিতে তাঁর নিজ বাসভবনে অনেকটা নীরবে এবং নিভৃতে মৃত্যুবরণ করেন। রব পিকে নামক তাঁর এক সহকর্মী তাঁর মৃত্যুর বিষয় প্রথম নিশ্চিত করেন। কিন্তু তার মৃত্যুর সঠিক সময় বা কারণ কোনোটিই প্রকাশ করা হয়নি। সংবাদ মাধ্যমেও এই কিংবদন্তী বিজ্ঞানীর মৃত্যুসংবাদ প্রচার হয় স্বল্পপরিসরে। ডেনিস রিচির মৃত্যুর পর  জেমস গ্রিমেল্ম্যান তাঁর টুইটার এ্যাকাউন্টে টুইট করে লেখেনঃ  “তাঁর পয়েন্টার শূন্যতে ছেড়ে দেয়া হয়েছে, তাঁর প্রসেসকে থামিয়ে দেয়া হয়েছে এক্সিট  কোড ০ দিয়ে।”

লেখক: তামান্না নিশাত রিনি

Facebook Comments

Leave a Reply