পাইথন কী?

কম্পিউটারকে দিয়ে কাজ করাতে গেলে কম্পিউটার বুঝতে পারে, এমন ভাষায় তাকে নির্দেশ দিতে হয়। এরকম প্রোগ্রামিং ভাষা অনেক রয়েছে এবং নিত্যনতুন তৈরি হচ্ছে। তবে অল্প কয়েকটি প্রোগ্রামিং ভাষাই প্রোগ্রামারদের কাছে জনপ্রিয় হতে পেরেছে। তেমন একটি প্রোগ্রামিং ভাষা হচ্ছে পাইথন যেটি তৈরি করেন গুইডো ভন রুযাম (Guido van Rossum)। ১৯৮৯ সালের ডিসেম্বর মাসে ক্রিসমাসের ছুটিতে তিনি পাইথন তৈরি করা শুরু করেন। তবে পাইথন সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা পায় ২০০০ সালে তার ২.০ সংস্করণ চালু হওয়ার পরে। বর্তমানে পাইথনের ২.৭ এবং ৩.৪ এই দুটি সংস্করণ চালু রয়েছে।

Guido Van Rossum

পাইথন একটি উচ্চস্তরের প্রোগ্রামিং ভাষা। পাইথন স্ট্রাকচার্ড প্রোগ্রামিং এবং অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং করা যায়। এছাড়া ফাংশনাল প্রোগ্রামিংও করা যায় পাইথন দিয়ে। সাম্প্রতিক একটি জরিপে [১] দেখা যায় যে সারা পৃথিবীতে বর্তমানে জনপ্রিয়তার বিচারে পাইথনের স্থান চতুর্থ (শীর্ষ তিনটি হচ্ছে, জাভা, সি, সি প্লাস প্লাস), আর যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ৬৯% তার শিক্ষার্থীদের প্রোগ্রামিংয়ের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয় পাইথন ব্যবহার করে [২]। এছাড়া বিশ্ববিখ্যাত প্রতিষ্ঠান গুগলের তিনটি অফিশিয়াল প্রোগ্রামিং ভাষার একটি হচ্ছে পাইথন।

পাইথনের এত জনপ্রিয় হওয়ার কারণ কী? পাইথন প্রোগ্রামাররা নিচের কারণগুলোকেই প্রধান মনে করেন:‌

  • পাইথন কোড সহজে পড়া যায়
  • কোড সি বা জাভার চেয়ে তুলনামূলক অনেক ছোট হয়
  • পাইথনে রয়েছে লিস্ট, ডিকশনারি ও সেটের মতো চমৎকার ডাটা স্ট্রাকচার
  • পাইথন বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ব্যবহার করা যায়
  • বিশাল ও কার্যকর স্ট্যান্ডার্ড লাইব্রেরি রয়েছে
  • শক্তিশালী অনলাইন কমিউনিটি
  • চমৎকার ওয়েব ফ্রেমওয়ার্ক (জ্যাঙ্গো, ফ্লাস্ক ইত্যাদি)

মোটামুটি সব লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশন ও ম্যাক অপারেটিং সিস্টেমে পাইথন বিল্ট-ইন থাকে, আলাদাভাবে ইনস্টল করতে হয় না। উইন্ডোজে পাইথন আলাদা করে ইনস্টল করতে হয়, যা পাইথনের অফিয়াল ওয়েবসাইট [৩] থেকে ডাউনলোড করা যায়।

পাইথন সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় ওয়েব ভিত্তিক সফটওয়্যার নির্মাণে। জ্যাঙ্গো (django) ফ্রেমওয়ার্কটি খুবই জনপ্রিয়। এছাড়া বিভিন্ন অটোমেশন সফটওয়্যার নির্মাণ, বায়ো ইনফরমেটিক্স, মেশিন লার্নিং, ডাটা এনালাইসিস, ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং, ওয়েব ক্রলার তৈরিতেও পাইথনের ব্যাপক ব্যবহার রয়েছে। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে পাইথনের ব্যবহার। বেশ কিছু দেশীয় সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠানে পাইথন ব্যবহার করা হচ্ছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)-এর অটোমেশনের লক্ষ্যে নির্মিত ‘ওয়েব বেইজড ডাটাবেজ’ সফটওয়্যারটি পাইথন দিয়েই তৈরি করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মুক্ত সফটওয়্যার লিমিটেড।

পাইথন শেখার জন্য পাইথনের অফিশিয়াল টিউটোরিয়াল রয়েছে [৪]। এছাড়া অনলাইনে রয়েছে বিভিন্ন বই ও অনলাইন কোর্স। তবে বাংলা ভাষায়ও পাইথন শেখার সুযোগ রয়েছে অনলাইনে। একেবারে নতুনদের জন্য আছে ‘হুকুশ পাকুশের প্রোগ্রামিং শিক্ষা’ [৫] যেটি তৈরি করেছেন ইকরাম মাহমুদ। আর ‘পাইথন পরিচিতি’ [৬] নামে ধারাবাহিক ভিডিও লেকচার রয়েছে যা পাইথন শেখার জন্য বেশ কার্যকর। সম্প্রতি দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুল [৭], বাংলাদেশ পাইথন ইউজার গ্রুপ [৮] ও বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক মিলে প্রথমবারের মতো আয়োজন করে ‘পাইকন ঢাকা ২০১৪’ যা পাইথনের উপর বাংলাদেশে প্রথম আন্তর্জাতিক সম্মেলন।

সত্যিকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ তৈরি করবে আমাদের দেশের তরুণ প্রোগ্রামাররা। তাই তাদের আধুনিক প্রযুক্তিতে দখল থাকা চাই। পাইথনের মতো আধুনিক প্রোগ্রামিং ভাষার ব্যবহার বাংলাদেশের প্রোগ্রামারদের মান ও উৎপাদনশীলতা যেমন বাড়াবে তেমনি আমাদের সফটওয়্যার শিল্পকে নিয়ে যাবে এক নতুন উচ্চতায়।

লিঙ্কঃ
১) http://goo.gl/DiWrtA
২) http://goo.gl/eDyqM0
৩) http://python.org
৪) http://goo.gl/QTfyY1
৫) http://hukush-pakush.appspot.com
৬) http://pyvideo.subeen.com
৭) http://dimikcomputing.com
৮) http://pycharmers.net

লেখাটি প্রথম আলোতে প্রকাশিত হয় ২৫-০৭-২০১৪ তারিখে।

অনলাইন সংস্করণ: http://www.prothom-alo.com/technology/article/276553

ই-প্রথম আলো: http://epaper.prothom-alo.com/index.php?opt=view&page=28&date=2014-07-25

Facebook Comments

1 thought on “পাইথন কী?”

Leave a Reply