প্রোগ্রামিং ক্লাব

বাংলাদেশে ধীরে ধীরে প্রোগ্রামিং বিষয়টি জনপ্রিয় হয়ে উঠতে শুরু করেছে। প্রোগ্রামিংকে ঘিরে বিভিন্ন পর্যায়ে প্রতিযোগিতা, হ্যাকাথন ইত্যাদি অনুষ্ঠান মাঝে-মধ্যে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মাঝে কেউ কেউ আবার নিজেদের উদ্যোগে গঠন করছে বিভিন্ন ক্লাব আর সেখানে শিক্ষার্থীদের প্রোগ্রামিংয়ে আগ্রহী করার জন্য চলে নানান আয়োজন। তো কখনও কখনও অনেকে আমার কাছে জানতে চায় যে, “ভাই, আমি আমার এলাকায় বা স্কুলে একটি প্রোগ্রামিং ক্লাব করতে চাই, কিভাবে কী করবো?” তখন আমি তাদেরকে মিজানুরের কথা বলি। ঝিনাইদহের মিজানুরকে আমি কিভাবে চিনলাম, সেটি জানতে হলে পড়তে হবে এই লেখাটি। মিজানুর কেবল ক্লাব তৈরি করেই ক্ষান্ত হয় নি, তার ক্লাবের ছেলেমেয়েরা জাতীয় হাইস্কুল প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় পুরষ্কারও জিতেছে। তো মিজানুরকেও অনেকে একই প্রশ্ন করে, তাই সে গুছিয়ে একটি লেখা লিখেছে। মিজানুর রহমানের লেখাটি এখানে তুলে দিলাম। লেখাটির জন্য মিজানুরকে অশেষ ধন্যবাদ।

আপনি কিভাবে আপনার এলাকায় একটি প্রোগ্রামিং সংগঠন গড়ে তুলবেন?

প্রথমেই প্রোগ্রামিং শেখাতে যাবেন না। গ্রাম/জেলা শহরের প্রায় অধিকাংশ মানুষের ধারনা কম্পিউটার বিনোদন এর কাজে ব্যবহার করা হয়, তাদের কাছে কম্পিউটার এর বিনোদনটাই আনন্দদায়ক। ঠিকাছে, আপনি ১০০ জন শিক্ষাথীকে এক জায়গায় করেন, যদি না পারেন তাহলে ৫০ জন, যারা ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। দশম শ্রেণীর শিক্ষাথীদেরকে নিতে হবে না, কারণ তাদের কিছুদিন পরই SSC পরীক্ষা।

তাদেরকে বোঝান কম্পিউটার আসলেই কী? এটি দিয়ে অনেক মজার মজার কাজ করিয়ে নেওয়া যায়, যেমন- কম্পিউটার ১ থেকে ১০০০০০ এর মধ্যে যত মৌলিক সংখ্যা আছে, তা ১ সেকেন্ডে বলে দিতে পারে! অবশ্যই মজা করে এবং আশ্চার্য জনক ভাবে বোঝাতে হবে। তারপর আপনি চাইলে মটিভেশনাল কিছু ভিডিও দেখান। এই ভিডিও গুলা দেখাতে পারেন –

https://www.youtube.com/watch?v=krYXHtrzXLU

https://youtu.be/wldli30PT1E

সর্বপরি প্রথমে তাদের কে এটাই খুব ভালো করে বোঝাতে হবে যে কম্পিউটার বিনোদন এর মেশিন না, এটা অনেক শক্তিধর, যেটা দিয়ে পৃথিবী পৃষ্ঠ থেকে চাঁদে একটা রোবট নিয়ন্ত্রন করা যায় যেন রুপকথার মতন)।

এখন আসি প্রোগ্রামিং-এ, এতক্ষণ ধরে তাদেরকে যেই রূপকথা শোনালেন, সেটার আসল শক্তি যে প্রোগ্রামিং সেটা ভালো করে বোঝান। বোঝান যে, এই প্রোগ্রামিং শিখলে তুমি এক সুপার পাওয়ার এর অধিকারি হতে পারবে, তুমি যে ক্লাশ অফ ক্লান, টেম্পল রান নামক গেম গুলা খেলো সেগুলা বানাতে পারবে। বোঝান যে এই প্রোগ্রামিং শিখলে অনেক সম্মান + পুরস্কার পাওয়া যায় (NHSPC এর ব্যাপার টা)।

এর পর দেখেন সেই ১০০ জন এর মধ্যে কত জন প্রোগ্রামিং এর ব্যাপারে উৎসাহী হয়। আশা করি, অনেকে হবে, কারন আমার অভিজ্ঞতা তাই বলে।

এখন যারা প্রোগ্রামিং এ আগ্রহী, তাদের একটা প্রধান সমস্যা হবে, তাদের অনেকের কোনো ল্যাপটপ বা ডেক্সটপ নাই। তখন আপনি তাদেরকে বলবেন যে, এই প্রোগ্রামিং জিনিসটা এন্ড্রয়েড মোবাইল দিয়েও করা যায়। এমন ফ্যামিলি খুব কম আছে যাদের পরিবারে বাবা, মা অথবা বড় আপু-ভাইয়ার একটা এন্ড্রয়েড মোবাইল নাই। তাই তাদের আটকে থাকার কারণ নাই।

এবার আসি কিভাবে প্রোগ্রামিং শেখাবেন সেই কথায়। আপনি তাদেরকে শুধু শেখান, কিভাবে কোডব্লকস ইনস্টল দিবে, কিভাবে কোড লিখবে, কিভাবে কোড রান কম্পাইল করবে, কোডে কোথাও ভুল থাকলে সেগুলা কিভাবে বুঝবে, কিভাবে কোড রান করবে। এবং পরিশেষে তাদের কে আপনি “Hello World” টা রান করা শিখিয়ে দিন। বাকি সব কিছু তারা শিখে নিবে! কিভাবে? ওদের কে খুব ভালো করে একটা জিনিশ শিখিয়ে দিতে হবে আপনাকে, সেটা হলো তারা নিজেরা কিভাবে বই (বই এর লিংক http://cpbook.subeen.com) পড়ে প্রোগ্রামিং শিখবে। বই-এর প্রতিটা কোড সে নিজে নিজে লিখবে এবং রান করবে। কোথাও না বুঝলে ফেসবুক-এ অনেক গ্রুপ আছে (যেমন : https://facebook.com/groups/programming.school/ অথবা https://facebook.com/groups/bengaliprogramming/ ) সেখানে শিক্ষার্থীরা তাদের সমস্যা বা প্রশ্ন পোস্ট করবে। আর যদি ফেসবুক না থাকে (না থাকাই আসলে ভালো) তাহলে আপনার মোবাইল নাম্বার দিয়ে দিন, আপনাকে ফোন করবে, আপনি ফোনে বুঝায়ে দিবেন, আর গুগল তো আছেই। এখন গ্রামেও খুব ভালো ইন্টারনেট। আর আপনি প্রচুর উৎসাহ দিবেন। ছোটরা আনন্দের সাথে শিখতে ভালোবাসে, তাদেরকে যেটুকুই শেখান না কেন, আনান্দের সাথে শেখান।

এদের মধ্যে কিছু শিক্ষাথী থাকবে, যারা ২/১ দিন শিখে আর শিখতে চাইবে না। তাদেরকে আর শেখানোর চেষ্টা করার দরকার নাই, কাউকে জোর করে কিছু শেখানো যায় না এবং আমি এটার পক্ষে না। সবাইকেই যে প্রোগ্রামিং শিখতে হবে তা নয়। কেউ ক্রিকেট খেলবে, কেউ গান গাবে-শিল্পী হবে, কেউ ডাক্তার হবে। কিন্তু প্রোগ্রামিং এর মতন একটা মজার জিনিশের সাথে তাদের পরিচয় হবে সেটাই আসল কথা।

আমি শতভাগ নিশ্চিত আপনি ১/২ মাস পর ১০/২০ জন শিক্ষাথী পাবেন যারা মোটামুটি প্রোগ্রামিং পারে। এর পর ঐ ১০ জনকে দেখেই আরো ১০ জন শিখবে। তারপর আরো ১০ জন, তারপর আরো…এভাবেই চলবে…।

আপনার জেলা টেকনাফ হোক আর তেতুলিয়া হোক, অথবা সুন্দরবনের মধ্যে আপনার গ্রাম হোক, আপনি আপনার এলাকায় একটা প্রোগ্রামিং সংগঠন তৈরি করতে পারেন। আগামী বিশ্ব না, এই বর্তমান বিশ্ব এখন প্রোগ্রামারদের। আর এই বিশ্বকে শাসন করবে তারা, যাদের প্রোগ্রামার আছে, প্রযুক্তি আছে। আর প্রোগ্রামার তাদেরই থাকবে যারা হাইস্কুল থেকেই শিক্ষাথীদের প্রোগ্রামিং শেখাবে।
হ্যাপি কোডিং </>

– মিজানুর রহমান।

 

Facebook Comments

Leave a Reply