মারুফ মনিরুজ্জামান এর সাক্ষাৎকার

মারুফ মনিরুজ্জামান একজন সফটওয়্যার নির্মাতা। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে লেখাপড়া করেছেন। তারপর ঢাকায় সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করলেও, মাইক্রোসফটে চাকরি পেয়ে কানাডা চলে যান। এখন তাঁর বসবাস যুক্তরাষ্ট্রে। মনির ভাই আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের বড় ভাই, আমার চেয়ে ২ ব্যাচ সিনিয়র। তাই তাঁর কাছ থেকে দুইঘণ্টা সময় বের করতে কোনো সমস্যা হলো না। আশা করি আমাদের দেশের উদীয়মান প্রোগ্রামাররা তাঁর কথা থেকে উপকৃত ও অনুপ্রাণিত হবে।

সুবিন : মনির ভাই, এখন কোথায় কাজ করছেন?
মনিরুজ্জামান : আমি এখন Caradigm নামে একটা কোম্পানিতে কাজ করি। এটা মাইক্রোসফট আর জেনারেল ইলেকট্রিক কোম্পানির হেলথ কেয়ার ভিত্তিক যৌথ উদ্যোগ।

সুবিন : এখানে আপনি কী ধরণের কাজ করেন? আপনার প্রজেক্ট সম্পর্কে একটু বলুন।
মনিরুজ্জামান : আমি যে প্রজেক্টে কাজ করি সেটা হেলথ কেয়ারের জন্য একটা প্লাটফর্ম। এটা বিভিন্ন উৎস এবং ডিভাইস থেকে তথ্য সংগ্রহ থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যেসব প্রযুক্তি দরকার হয়, সেগুলোর জন্য একটা প্লাটফর্ম সরবরাহ করে। যেটার উপর ভিত্তি করে অন্য ছোটবড় কোম্পানি সফটওয়্যার লিখতে পারে। এখানে মূলতঃ মাইক্রোসফটের প্রযুক্তি ব্যবহার হয়। যেমন ল্যাংগুয়েজের জন্য C#, প্লটাফর্মের জন্য Windows Server, SQL Server, Windows Azure, এছাড়া Natural Language Processing ইত্যাদি ব্যবহার হয়।

সুবিন : Caradigm-এ কবে থেকে কাজ করছেন? এখানে চাকরি পেলেন কিভাবে?
মনিরুজ্জামান : Caradigm এ কাজ করি প্রায় দেড় বছর। এখানে কাজ পেয়েছি মূলতঃ আমার আগের মাইক্রোসফটে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকায়। আমি এর আগে ২০০৮ সনে মাইক্রোসফট অফিসে (যারা Word, Excel, Exchange এই সফটওয়্যারগুলো বানায়) যোগ দেই। সেখানে কিভাবে কাজ পেলাম সেটা বলা যায়। আমি শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় জাভা ভার্চুয়াল মেশিন বানিয়েছিলাম একটা প্রোজেক্টের অংশ হিসাবে। সেটা নিয়ে আমি ২০০৮ এ codeproject এ একটা আর্টিকেল লিখি। সেটা ওই মাসে সেরা আর্টিকেল হিসাবে প্রথম হয়। এরপর ওরা আর্টিকেলের লিংকটা ওদের প্রায় ৫০ লক্ষ (৫ মিলিয়ন) সদস্যের কাছে পাঠায়। তাদের মধ্যে একজন মাইক্রোসফটের রিক্রুটার ছিল। উনি আমাকে রিজিউমি পাঠাতে বলেন। এরপর হংকংএ আমার ইন্টারভিউ হয়। এরপর আমি মাইকোসফট থেকে অফার পাই।

সেই আর্টিকেলের লিঙ্ক : http://www.codeproject.com/Articles/24029/Home-Made-Java-Virtual-Machine

সুবিন : বাংলাদেশে সফটওয়্যার ইন্ডাস্ট্রিতে কত বছর কাজ করেছেন?
মনিরুজ্জামান : আমি বাংলাদেশে কাজ করেছি প্রায় ৩ বছর। সাইক্রাফট সল্যুশন এবং কাজ সফটওয়্যার-এ।

সুবিন : এবারে একটু পেছনের দিকে যাই। প্রথম কম্পিউটারের সাথে পরিচয় কবে? প্রোগ্রামার হওয়ার সিদ্ধান্তটি কখন নিলেন?
মনিরুজ্জামান : কম্পিউটার প্রথম হাতে পাই শাহজালার বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর, ১৯৯৮ সনে। তবে কম্পিউটার নিয়ে আমার আগ্রহ ছিল স্কুলে পড়ার সময় থেকে। একটা কম্পিউটার হাতে পাওয়ার জন্য আমি অনেক চেষ্টা করেছি স্কুলে এবং কলেজে পড়ার সময়। তখন সি এন্ড ই জার্নাল নামে একটা পত্রিকা বের হত। সেটার ১৯৯৭ সংখ্যায় আমার একটা চিঠি ছাপা হয় যেটায় আমি জানতে চেয়েছিলাম Z80 কম্পিউটার বানানোর পার্টস কোথায় পেতে পারি। ওরা লিখেছিল এখন সেগুলো পাওয়া যাবে না। এর চেয়ে ১৫০০০ টাকা দিলে ওরা আমাকে একটা পুরোনো কম্পিউটার দিতে পারে। আর প্রথম প্রোগ্রামটা আমি “খাতায়” লিখেছিলাম সম্ভবত ১৯৯৪ সনে ক্লাস নাইনে পড়ার সময়। যেটা ছিল একটা কার্ড গেম। ১৯৯৮ সনে সেটা প্রথম কম্পিউটারে রান করে দেখি। প্রোগ্রামার হওয়ার সিদ্ধান্ত কবে নিলাম এটা বলা অনেক মুশকিল – তাই একটু ইতিহাস বলে দিলাম।

সুবিন : কম্পিউটার সায়েন্স পড়ার সিদ্ধান্তটি কি আপনার নিজের ছিল? নাকি বাবা-মা বলে দিয়েছে যে আপনাকে কম্পিউটার সায়েন্স পড়তে হবে?
মনিরুজ্জামান : আমার নিজের অবশ্যই। আমার “একটা কম্পিউটার থাকা মানুষের জীবনে কত জরুরী” এইটার বিবরণ শুনতে শুনতে আমার বাবা মা মোটামুটি অতিষ্ঠ হয়ে ছিলেন প্রায় ৫ বছর। আমি কম্পিউটার সায়েন্সে না পড়লেও সম্ভবত প্রোগ্রামার হওয়ার চেষ্টা করতাম।

সুবিন : আপনার প্রথম স্কুল কোনটি ছিল? কত বছর সেখানে পড়েছেন?
মনিরুজ্জামান : আমার প্রথম স্কুল ছিল কাজীপুর, সিরাজগঞ্জের একটি গ্রামে। খুকশিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। সেখানে চার বছর লেখাপড়া করি।

সুবিন : তারপর আর কোন কোন স্কুলে পড়েছেন? কোন কলেজে পড়েছেন?
মনিরুজ্জামান : তারপর হৈমবালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, এসবি রেলওয়ে কলোনি উচ্চ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেছি। আমার কলেজ হচ্ছে রাজশাহীর নিউ গভ: ডিগ্রী কলেজ।

সুবিন : আমাদের দেশে অভিভাবকরা তো নামীধামী স্কুলে সন্তানকে পড়ানোর জন্য মরিয়া। সেখানে না পড়লে জীবন শেষ। এই ব্যাপারে আপনার কী মতামত?
মনিরুজ্জামান : আমি নামি-দামি স্কুলে পড়ি নাই। সেকারণে আমি কী হারিয়েছি এটা চিন্তা করা মুশকিল। তবে আমার যত মানুষের সাথে পরিচয়, তার বেশিরভাগই নামীদামী স্কুলে পড়ে নাই। শেষ পর্যন্ত মানসিক উন্নতিটাই আসল। ইচ্ছা থাকলে যেকোনো জায়গা থেকে শেখা যায় বলেই আমার ধারণা।

সুবিন : আমাদের যে পরীক্ষাভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থা, এ নিয়ে আপনার কী মন্তব্য? কর্মজীবনে সিজিপিএ কতটা দরকারি?
মনিরুজ্জামান : পরীক্ষা তো থাকতেই হবে, নাহলে মূল্যায়ন করা মুশকিল। তবে পরীক্ষায় নম্বর পাওয়ার জন্য পড়াশোনা করাটা আমার কাছে সময়ের অপচয় মনে হয়। শেখার জন্য পড়া জরুরী আর কতটুকু শিখলাম, সেটার জন্য পরীক্ষা দরকার। যেন কতটুকু শেখা হলো সেটা অন্যদের সাথে তুলনা করা যায়। কর্মজীবনে এখন পর্যন্ত কেউ আমার কাছে সিজিপিএ জানতে চায় নাই, সুতরাং আমার ধারণা খুব বেশি দরকারি না। পিএইচডি করতে চাইলে মনে হয় লাগে, কিন্তু সেটা নিয়ে আমার কোনো অভিজ্ঞতা নাই।

সুবিন : যেসকল কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলের শিক্ষার্থীরা ক্যারিয়ার হিসেবে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বেছে নিতে চায়? তাদের প্রতি আপনার কী পরামর্শ?
মনিরুজ্জামান : প্রথমে দেখতে হবে বিষয়টাতে আপনার উৎসাহ আছে কিনা। আমি মনে করি, কোন বিষয় ভাল না লাগলে সেটা করা উচিৎ নয়। আপনি যদি প্রোগ্রামিং আগ্রহী হন এবং এটাকে পেশা হিসাবে নিতে চান তাহলে প্রথমে সময় নিয়ে চর্চা করুন। ভালভাবে না শিখে কাজ শুরু করলে কখনওই আর শেখা নাও হতে পারে। প্রচুর চর্চা করলে চাকরি নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। আমি অনেক কষ্টে (আসলে সহজে, পড়াশোনাই করতাম না- কষ্ট হল কিভাবে?) কম্পিউটার সায়েন্সের ডিগ্রি পেয়েছি। কিন্তু আমি সারাদিন কম্পিউটারে বিভিন্ন কাজ করতাম। আমার কাজে লাগবে সেকারনে করতাম না। মজা লাগত বলে করতাম। কয়েকটি বিষয় ঠিক করুন কী কী করতে চান। একটা কার্টুন সফটওয়্যার বানান। নির্দোষ ভাইরাস বানিয়ে বন্ধুকে পাঠিয়ে দিন। কম্পিউটারকে ১ থেকে ১০০০ বিলিয়নের মধ্যে সবগুলো প্রাইম নাম্বার বের করতে লাগিয়ে দিন। দাবা খেলার প্রোগ্রাম লিখুন, যেটা ১০০০ লাইনের মধ্যে করা সম্ভব বা প্রেয়সীর ছবি দিয়ে গেম বানান, যেটা ছবির বিভিন্ন অংশ এলোমেলো ব্লকে রাখবে। আনন্দ আর কাজ একসাথে করা যাবে না কেন? তারপর একদিন দেখবেন মাইক্রোসফট রিক্রুটারের মেইল পেয়ে গেছেন। আমার ক্ষেত্রে তাই হয়েছে।

সুবিন : ভালো প্রোগ্রামার হতে গেলে অ্যালগরিদমভিত্তিক প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা, যেমন এসিএম আইসিপিসি-তে অংশগ্রহন কতটা গুরুত্বপূর্ণ?
মনিরুজ্জামান : ভালো প্রোগ্রামার হতে অবশ্যই ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদম জানতে হবে। ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদম না জেনে সফটওয়্যার বানালে সেটার  মধ্যে কাঠামোগত ত্রুটি থাকবে। এই ত্রুটিগুলোর কারণে সফটওয়্যারে নতুন ফিচার যোগ করা বা অধিক সংখ্যক ব্যবহারকারীর জন্য ব্যবহার উপযোগী করা কঠিন হয়ে পড়ে। সাধারনভাবে জটিল ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদম নিত্যদিনের কাজে দরকার হয় না। কিন্তু অনেক ছোট ছোট সিদ্ধান্ত নিতে হয় যেগুলোতে ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদম জানা একজন প্রোগ্রামারের সিদ্ধান্ত অনেক উন্নতমানের হয়। একারনে মাইক্রোসফট, ফেসবুক, গুগলের মত কোম্পানি ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমের উপরই মূলতঃ ইন্টারভিউ নিয়ে থাকে। ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমে দক্ষ যে কেউ অন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা সহজেই আয়ত্ব করতে পারে। এসিএম আইসিপিসি মূলতঃ কতটুকু ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমে শেখা হল সেটার একটা পরীক্ষা। এখানে ভাল করলে ধরে নেয়া যায় যে, শেখা হচ্ছে ঠিকমত। যাদের সুযোগ আছে তাদের এসিএম আইসিপিসি তে অংশগ্রহন করা উচিত এবং প্রতিযোগীতায় ভাল করার চেষ্টা করা উচিত। শেষ পর্যন্ত সবাই প্রথম স্থান পাবে না বা প্রথম ১০ এর মধ্যে থাকতে পারবে না। কিন্তু অংশগ্রহনের মধ্য দিয়ে অনেককিছু শেখা হবে যেটা পরবর্তীতে অবশ্যই কাজে লাগবে। তবে কেউ যদি ইচ্ছা করে তবে জীবনের যে কোনো পর্য়ায়েই যে কোনো কিছু শিখতে পারে। তাই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনের সুযোগ না থাকলেও পূর্বের বিভিন্ন প্রতিযোগীতার প্রশ্নগুলো দেখা যেতে পারে। এই প্রশ্নগুলো বিভিন্ন বাউন্ডারি কেস নিয়ে চিন্তা করতে শেখায়। যেটা পরবর্তীতে উন্নতমানের সফটওয়ার তৈরির জন্য কাজে লাগবে। আমি ব্যক্তিগতভাবে http://ace.delos.com/usacogate সাইটের প্রশ্নগুলো সমাধান করতাম। এখানে ১০০ এর মত প্রশ্ন আছে যেগুলো জানা একজন কম্পিউটার প্রকৌশলীর জন্য জরুরী।

সুবিন : কম্পিউটার সায়েন্সে না পড়ে কি সফটওয়্যার নির্মাতা হওয়া সম্ভব?
মনিরুজ্জামান : হ্যাঁ, সম্ভব। কম্পিউটার সায়েন্সে যে বিষয়গুলো পড়ায় তার মধ্যে বিভিন্ন ল্যাংগুয়েজ, কম্পিউটার আর্কিটেকচার সম্পর্কে ধারনা, সফটওয়্যার ডিজাইন, ডাটাবেজ সিস্টেমস, ডাটা স্ট্রাকচার, অ্যালগরিদম এই বিষয়গুলো সরাসরি কাজে লাগে। যে কেউ এগুলো নিজে নিজে শিখতে পারে যদি আগ্রহ থাকে। কিন্তু মনে রাখতে হবে বিষয়গুলো কয়েক বছর ধরে পড়ানো হয়। তাই শর্টকাট খুঁজলে হবে না। সময় নিয়ে খুঁটিনাটি বিষয়গুলো শিখতে হবে। মাইক্রোসফট অফিসে আমার একজন কলিগ ছিলেন যিনি পদার্থবিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। এখন সিনিয়র ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে কাজ করছেন। অল্প দিনেই প্রিন্সিপাল ইঞ্জিনিয়ার হয়ে যাবেন সম্ভবত। মাইক্রোসফট অফিসে কেউ যদি কম্পিউটার সায়েন্সে না পড়ে কাজ করতে পারেন, তাহলে আমার ধারনা, যে কোনো যায়গাতেই সেটা সম্ভব।

সুবিন : একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারের কী কী দক্ষতা থাকা উচিত? দক্ষতা বলতে আমি টেকনিক্যাল স্কিল এবং সফট্ স্কিল দুটোই বুঝাচ্ছি।
মনিরুজ্জামান : প্রথমত, প্রচুর পরিমান অনুশীলন করতে হবে। বিষয়টা অনেকটা ব্যয়াম করার মত। কেউ যদি ১০ টা বুকডন (বা অন্য যে কোন ব্যায়াম) দিয়ে বলে আমি বুকডন দেয়া শিখে গেছি, আমার আর বুকডন দেয়ার দরকার নাই তাহলে যেমন শোনাবে – যখন কেউ বলে আমি এই ল্যাংগুয়েজ শিখে ফেলেছি সুতরাং আমার আর প্রোগ্রামিং করার দরকার নাই তাহলে সেরকমই শোনাবে। অনেক চর্চা করতে হবে। ব্যাপারটাকে ব্যায়ামের মত দেখতে হবে। কম্পিউটারের ভাষায় পুরোপুরি দক্ষতা থাকতে হবে। সফটওয়্যার তৈরি কবিতা লেখার মত। কবিতা লেখার সময় কবি কখনও ভাষা নিয়ে চিন্তা করেন না। ভাষা পুরোপুরি জানা না থাকলে কেউ কবিতা লেখার চেষ্টা করেন না।

আবার শুধু বুকডন চর্চা করলে যেমন ব্যায়ামের লক্ষ্য পূরন হয় না তেমনি শুধুমাত্র একটা বিষয় শিখলে ভাল সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হওয়া যায় না। কয়েকটা বিভিন্ন ধরনের ভাষা জানা জরুরী। প্রত্যেকটা ভাষার কিছু নিজস্ব বৈশিষ্ট্য আছে। বৈশিষ্ট্যগুলো জানা থাকা দরকার। আমি Python, C, C# বা Java, Javascript, Erlang, Assembly অন্তত এই কয়েকটা ল্যাংগুয়েজ শেখার পরামর্শ দেব। প্রত্যেকটা ভাষারই কিছু অনন্য বৈশিষ্ট্য আছে। এবং কেউ যদি শুরু করতে চান তাহলে প্রথমে পাইথন দিয়েই শুরু করুন। তারপর বাকিগুলো শেখা যেতে পারে। ভাষা শেখার জন্য ৫০০-১০০০ ঘন্টা ব্যায় করা হলে এরপর ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমের দিকে সময় দেয়া দরকার। যদিও ১০০০ ঘন্টা চর্চা করলে কিছু ডাটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদম শেখা হয়ে যাবে।

এরপর দরকার কাঠামো তৈরি শেখা। সেজন্য ডিজাইন প‌্যাটার্ন (http://en.wikipedia.org/wiki/Design_Patterns) শিখতে হবে। এটাও মূলতঃ অনেকদিন ধরে চর্চার মাধ্যমেই আয়ত্ব করতে হয়।

এরপর নেটওয়ার্কিং, প্যারালাল প্রসেসিং এবং সিকিউরিটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হবে।

এছাড়া আর যে বিষয়গুলো লাগে সেগুলো হল বিভিন্ন ধরনের ডাটাবেজ সম্পর্কে ধারনা (SQL, NoSQL), বিভিন্ন ফ্রেমওয়ার্ক (ASP .NET, Angular JS ইত্যাদি) সম্পর্কে ধারনা, ক্লাউড কম্পিউটিং, সোর্স কোড কন্ট্রোল (Team Foundation Server, Git), Continuous Integration এবং বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার ডেভলপমেন্ট মেথড (যেমন agile) ইত্যাদি। এগুলো সম্পর্কে প্রাথমিক ধারনা থাকলে কাজ করতে করতে শিখে ফেলা যায়।

আর সফটওয়্যার তৈরি শুরু করার আগে মোটামুটি একটা খসড়া ডিজাইন ডকুমেন্ট বানাতে হয়। যেটা পরবর্তীতে পরিবর্তন হতে পারে কিন্তু কাজ শুরু করার জন্য একটা থাকতেই হবে। এই বিষয়টা অভ্যাস করলে ভাল হয়।

একটা বিষয় যেটা বাংলাদেশে গুরুত্ব দেয়া হয় না সেটা হচ্ছে যোগাযোগ দক্ষতা। অন্য মানুষের সাথে কিভাবে সঠিকভাবে কোনো বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে হবে, বা কিভাবে কোনো বিষয়ে মতের অমিল হলে সেটা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে হবে – এগুলো শেখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কাউকে কোনভাবে আক্রমন বা অসম্মান করলে তার থেকে ভবিষ্যতে কোন সহায়তা পাওয়া অসম্ভব।

আর সবশেষে আরকবার বলি শব্দটা হচ্ছে দক্ষতা – মেধা নয়। মাসে একদিন ৮ ঘন্টা ব্যায়ম করলে হবে না। প্রতিদিন করতে হবে। আর প্রতিদিন কতটুকু পেশি বাড়ল সেটাও মাপা যাবে না। একবছর পর মাপতে হবে কতটুকু উন্নতি হল। প্রোগ্রামিং বা সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং এর ক্ষেত্রেও তাই। কাজটা অনেক মজার সুতরাং আশা করি সেটা আনন্দদায়ক অভিজ্ঞতা হবে।

সুবিন : বাংলা ভাষায় প্রোগ্রামিং শিক্ষা কতটা গুরুত্বপূর্ণ ?
মনিরুজ্জামান : পৃথিবীর বেশিরভাগ মানুষ নিজের ভাষায় পড়াশোনা করে। আমাদের জন্য সেটা বাংলা ভাষা। প্রোগ্রামিং এর সাথে বাংলা বা ইংরেজি বা অন্য ভাষার সরাসরি কোন সম্পর্ক নাই। যদি ভাল মানের বই থাকে তবে নিজের ভাষায় যে কোন কিছু শেখা সহজ। সেটা প্রোগ্রামিং এর ক্ষেত্রেও সত্য। আর বাংলা ভাষায় বই অবশ্যই দরকার আছে। অনেকেই শুধু ইংরেজি ভাষায় দুর্বল থাকার কারনে প্রোগ্রামিং শেখার উৎসাহ পায় না।

সুবিন : আপনি তো প্রোগ্রামিং শিক্ষা নিয়েও কাজ করেন। শিক্ষক ডট কম-এ আপনার সি প্রোগ্রামিংয়ের একটি কোর্স আছে। এই কাজগুলো সম্পর্কে যদি একটু বলতেন।
মনিরুজ্জামান : আমি যদি কম্পিউটার সায়েন্সে পড়ার সুযোগ না পেতাম তাহলে নিজে নিজে শেখার চেষ্টা করতাম। কিন্তু সেটা মোটেও সহজ হত না। সেকারনে আমি পরিকল্পনা করেছিলাম ১/২টা ভাষা, ডাটা স্ট্রাকচার, অ্যালগরিদম, কম্পিউটার আর্কিটেকচার ইত্যাদি কোর্স আকারে তৈরি করা। আমি মূলত ইউটিউবে ভিডিওগুলো আপলোড করা শুরু করেছিলাম। এরপর ডক্টর রাগিব হাসান ওনার শিক্ষক.কম সাইট চালু করেন এবং আমার ভিডিওগুলো সেখানে দিতে শুরু করি। যেহেতু শিক্ষক.কমে আর্টিকেলও দিতে হয় সেকারনে আমি আর্টিকেলও লিখতে থাকি। তবে আর্টিকেল লিখতে অনেক সময় লাগে। সেকারনে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি আর্টিকেল না লিখে এখন থেকে শুধু ভিডিও আপলোড করব আর আগের মত http://u.lekhoni.com সাইটে সেগুলো রাখব। এরপর লেখার কাজটা করা যাবে সময় পেলে। আমি এখন ডাটা স্ট্রাকচার আর অ্যালগরিদমের ভিডিওগুলো তৈরি করছি। আর বাংলায় এই বিষয়ে একটা বই লিখছি। তবে এই বিষয়ে আারো অনেকে এগিয়ে আসছেন যারা আমার চেয়ে অনেক বেশি সক্রিয়। এটা অনেক আশার কথা।

সুবিন : এবারে অন্য প্রসঙ্গে যাওয়া যাক। আপনি তো বাংলাদেশে একটি উদ্যোগের (iFeri.com) সাথে জড়িত? সেটি নিয়ে যদি একটু বিস্তারিত বলতেন।
মনিরুজ্জামান : iFeri.com আমরা তিন বন্ধু (আমি, শামস, নাসির) মিলে শুরু করেছি ২০১১ সনে। এটা একটা অনলাইন শপিং উদ্যোগ। ঢাকায় কোনকিছু কিনতে কোথাও যেতে হলে যত সময় রাস্তায় আটকে থাকতে হয় সেটা খুবই অসুবিধাজনক। কেউ যদি বাসায় জিনিসটা ডেলিভারি দিয়ে যায় তাহলে জীবনের অনেক মূল্যবান সময় বাঁচে । এটাই শুরু করার আগে আমাদের “আমরা কি সুবিধা দিতে পারি” এই প্রশ্নের উত্তর ছিল। এটা আসলে একটা ব্যবসা উদ্যোগ। সফটওয়ার উদ্যোগ নয়। একজন সফটওয়ার ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে কোন একটা কোম্পানিতে কাজ করলে, সেটা যত বড়বা ছোট কোম্পানিই হোক, সেটা নিজের দাবি করা যায় না। আর পুরোপুরি স্বাধীনতাও পাওয়া যায় না কখনও।

Wolfram এর তধ্য অনুযায়ী ঈদের মাসে ১৫ লক্ষ হিট হয়েছে আমাদের সাইটে। ১ লক্ষ এর বেশি মানুষ এসেছে। কম খরচে এইরকম লোড সাপোর্ট দেয়ার জন্য আমরা বেশকিছু প্রযুক্তি ব্যবহার করেছি। যেটা নিয়ে iFeri.com এ লেখার ইচ্ছা আছে ভবিষ্যতে।

এরকম ১২টি সাক্ষাৎকার নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে “প্রোগ্রামিং ক্যারিয়ার গাইডলাইন : এক ডজন প্রোগ্রামারের কথা”। বইটি পাওয়া যাচ্ছে নীলক্ষেতের হক লাইব্রেরি ও রকমারি ডট কম-এ। বিস্তারিত জানতে ওপরের ছবিতে ক্লিক করুন।

সুবিন : ভবিষ্যতে কী বাংলাদেশে এসে কাজ করার কোনো পরিকল্পনা আছে?
মনিরুজ্জামান : বাংলাদেশে শারিরিক ভাবে উপস্থিত না থাকলেও এখনও আমি বিভিন্ন কাজ করছি বাংলাদেশে। ভবিষ্যতে পুরোপুরি অনলাইন ভিত্তিক একটা আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেলের প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় করার ইচ্ছা আছে। যেটার জন্য আমি মূলতঃ উদ্যোক্তা হব। শিক্ষক হিসাবে যোগ্যতা সম্পন্ন মানুষ কাজ করবেন। সবাই বাসায় বসে পড়াশোনা করতে পারবে। কিভাবে পরীক্ষা নেয়া হবে, কি কি বিষয় থাকবে সেটা নিয়েও ভেবে দেখতে হবে। আর এটা হবে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। তবে এটা করতে অবশ্যই বেশ সময়ের প্রয়োজন।

Facebook Comments

Leave a Reply