লোড টেস্টিং

একটি সফটওয়্যারের লোড টেস্টিং (load testing) বলতে বোঝায়, সফটওয়্যারটি কতটুকু লোড নিতে পারে। লোড টেস্টিংকে আধুনিক বাংলায় অনুবাদ করলে দাঁড়ায় চাপ সামলাও, কিন্তু যেহেতু এটি একটি পরিচিত টার্ম, তাই আমরা লোড টেস্টিংই বলবো। লোড টেস্টিং যে কেবল সফটওয়্যারের হয় এমন নয়, লিফট, গাড়ি, রড ইত্যাদি অনেক কিছুরই লোড টেস্টিং করা হয়। সফটওয়্যার ক্ষেত্রে আবার বিভিন্ন রকম সফটওয়্যারের জন্য লোড টেস্টিং ভিন্ন অর্থ বহন করে। আমি যদি একটি ফাইল প্রসেসিং সফটওয়্যার নিয়ে কাজ করি, তাহলে সেটির জন্য খুব বড় ফাইলে কাজ করতে দিয়ে লোড টেস্টিং করা যায়। একটি ভিডিও প্রসেসিং সফটওয়্যার কত বড় ভিডিও নিয়ে কাজ করতে পারে, সেটিও একটি লোড টেস্ট হতে পারে ওই সফটওয়্যারের জন্য। কিন্তু আমি আলোচনা করবো ওয়েব সার্ভিস বা ওয়েব এপিআই-এর লোড টেস্টিং নিয়ে। এক্ষেত্রে লোড বলতে বোঝাবে, একসাথে কয়টি ক্লায়েন্ট-এর লোড ওই ওয়েব সার্ভিস সামলাতে পারে।

[এই লেখাটি যারা ওয়েব প্রোগ্রামিংয়ের সঙ্গে পরিচিত, তাদের জন্য। যাদের ওয়েব সম্পর্কে একেবারেই ধারণা নেই, তারা দ্বিমিকের ওয়েব কনসেপ্টস্ নামক ফ্রি অনলাইন কোর্সটি করে ফেলতে পারে।]

একসাথে কয়টি ক্লায়েন্ট আমার ওয়েব সার্ভিস ব্যবহার করতে পারে, এই তথ্য বের করে আমি কী করব? ক্লায়েন্ট মানে হচ্ছে ইউজার। তো আমি যদি এমন কিছু তৈরি করি, যেটি হাজার হাজার ইউজার একই সময়ে ব্যবহার করবে, তাহলে আমার আগে থেকে জানা থাকতে হবে যে আমার ওয়েব সার্ভিস একসাথে কতজন ব্যবহার করতে পারবে এবং আমি যদি জানি যে কতজন ক্লায়েন্ট বা ব্যবহারকারী ওয়েব সার্ভিসটি ব্যবহার করবে, আমি সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে পারবো। যেমন আমি যদি আমার স্কুলের পরীক্ষার ফলাফল দেখার করার জন্য একটি সিস্টেম তৈরি করি যেখানে ওয়েব বা মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করে শিক্ষার্থীরা তাদের পরীক্ষার ফলাফল দেখতে পাবে, তাহলে আমার জানতে হবে স্কুলে মোট কতজন শিক্ষার্থী আছে। আর ফলাফল যেহেতু একই সময়ে প্রকাশ করা হবে, তাই সবাই সম্ভবত একই সময়ে অ্যাপ বা ওয়েবসাইট দিয়ে ফলাফল দেখতে চাইবে। স্কুলের শিক্ষার্থীর সংখ্যা যদি ৩০০০ হয়, তাহলে আমার এই অ্যাপ ও ওয়েবসাইটের পেছনে যে ওয়েবসার্ভিসটি আছে, সেটি ওই ৩০০০ ব্যবহারকারীর লোড সামলাতে পারতে হবে। আবার আমি যদি এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ওয়েবসাইট ও অ্যাপ তৈরি করি, তাহলে সেই সিস্টেমের যে ওয়েব সার্ভিস থাকবে, তাকে একসাথে পনের লক্ষ ব্যবহারকারীর চাপ সামলানোর জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। তাই লোড টেস্ট করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ধরা যাক, আমার একটা এপিআই আছে, যেখানে শিক্ষার্থীর রোল নাম্বার ইনপুট দিলে পুরো রেজাল্ট আউটপুট দিবে। সেই এপিআইটা আমি লোড টেস্ট করতে চাই। কীভাবে করব?

প্রথম পদ্ধতি হচ্ছে, আমি আমার কম্পিউটার থেকে বিভিন্ন রোলনাম্বার দিয়ে ওই এপিআই কল করতে পারি। একই সময়ে অনেকবার কল করবো কীভাবে? মাল্টিথ্রেডিং ব্যবহার করে আমরা এমন একটি প্রোগ্রাম লিখতে পারি। তবে সেটি আসলে করার দরকার হবে না, কারণ ইতিমধ্যে এরকম অনেক টুলস পাওয়া যায়। আমি যেমন কয়েকমাস আগে Vegeta নামক একটি টুল ব্যবহার করেছি। এটি ওপেন সোর্স তাই সোর্সকোড দেখলে ধারণা করা যাবে যে লোড টেস্টিং টুলস কিভাবে তৈরি করতে হয়। আরেকটি টুল আছে, jMeter নাম (এটিও ওপেন সোর্স), যেটি আরো ৫ বছর আগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ফল প্রকাশের কাজের সময় ব্যবহার করেছিলাম। সেই অভিজ্ঞতা জানা যাবে এই লেখায় : ওয়েবসাইট বিপর্যয় ও মুক্তি উপায়

এখন আমি আমার কম্পিউটারে কোনো একটা টুলস ব্যবহার করে লোড টেস্টিং করে ফেললাম। কিন্তু এখানে দুটি সমস্যা আছে:

  1. প্রতিটি কম্পিউটারেরই একসাথে ওয়েব রিকোয়েস্ট করার (বা ওয়েব সার্ভিসকে কল করার) একটি সীমাবদ্ধতা থাকে, একটি নির্দিষ্ট সংখ্যার বেশি রিকোয়েস্ট একসাথে পাঠানো যায় না।
  2. দ্বিতীয় সমস্যা হচ্ছে নেটওয়ার্কের গতির সীমাবদ্ধতা। ঢাকায় আমার বাসার কিংবা অফিসের ইন্টারনেট যথেষ্ট গতিসম্পন্ন নয়।

তাই, আমাকে যেটি করতে হবে, একসাথে অনেকগুলো কম্পিউটার যোগাড় করে একসাথে লোড টেস্টিং শুরু করতে হবে। তাহলে আমি যদি ১০টি কম্পিউটার ব্যবহার করি, তাহলে ১০ গুণ লোড তৈরি করতে পারার কথা। কিন্তু সবাই যদি একই নেটওয়ার্কে থাকে, তাহলে এক্ষেত্রেও আমি নেটওয়ার্কের সীমাবদ্ধতার কারণে আটকে যাবো। তাহলে করণীয় কী?

আমরা ভিপিএস ব্যবহার করে এই লোড টেস্টিংয়ের কাজ করতে পারি। কারণ ভিপিএসগুলো খুবই দ্রুতগতির নেটওয়ার্কে থাকে এবং আমরা আমাদের প্রয়োজনীয়সংখ্যক (১০০টা দরকার হলে ১০০টা) ভিপিএস চালু করতে পারি। জেমিটার (jMeter) সফটওয়্যারটি একসাথে অনেক কম্পিউটারে বা সার্ভারে ইনস্টল করে কনফিগার করা যায় যেন একই সময়েে অনেকগুলো সার্ভার থেকে রিকোয়েস্ট পাঠানো যায়।

ওপরের কাজগুলো বেশ ঝামেলাসাপেক্ষ। তাই আজকাল অনেক সার্ভিস চালু হয়েছে যারা আমার হয়ে লোড টেস্ট করে দিবে। যেমন : loader.io (এরকম আরো আছে, গুগল সার্চ করলেই পাওয়া যাবে)। এসব সার্ভিস তাদের প্রয়োজনমতো কম্পিউটার ব্যবহার করবে, আমার কেবল সার্ভিসটি ব্যবহার করতে জানতে হবে।

লোড টেস্ট তো করলাম, এরপর কী করব? সেটি নির্ভর করবে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারের জ্ঞান-বুদ্ধির ওপর। আমার এই লেখার উদ্দেশ্য ছিল লোড টেস্টিংয়ের সাথে পরিচয় করানো এবং এর গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন করা। নিজে সচেতন হোন, অন্যকে সচেতন করুন।

Facebook Comments

3 thoughts on “লোড টেস্টিং”

  1. সহজ ভাষার সাবলীল লেখা। চলমান দ্বিতীয়, তৃতীয়,…., n খন্ডের অপেক্ষায় থাকলাম 🙂

Leave a Reply