পাইথন – ইতিহাস, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ

প্রোগ্রামিং সম্পর্কে সামান্য ধারণা আছে, অথচ পাইথনের নাম শোনেনি এমন মানুষ বোধহয় খুঁজে পাওয়া যাবে না। বর্তমান সময়ের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল প্রোগ্রামিং ভাষা হচ্ছে পাইথন। বাচ্চাদের প্রোগ্রামিং শেখা থেকে শুরু করে ব্যাকএন্ড ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, বৈজ্ঞানিক গবেষণা, জটিল তথ্য বিশ্লেষণ (Complex Data Analysis), কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (Artificial Intelligence) ইত্যাদিসহ আরো অনেক জায়গায় রয়েছে পাইথনের একচ্ছত্র আধিপত্য।

গিডো ফন রোসাম (Guido van Rossum) একটি ডিস্ট্রিবিউটেড সিস্টেম নিয়ে কাজ করতেন সিডাব্লিউআই-তে (Centrum Wiskunde & Informatica – CWI)। সেখানে তিনি সি ও ইউনিক্স শেল ব্যবহার করতেন। এগুলোর বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা নিয়ে হতাশ ছিলেন তিনি। সি ভাষায় মেমোরি ব্যবস্থাপনার বিশাল ঝামেলা, প্রতি নতুন প্রজেক্টে কিছু নির্দিষ্ট কাজ বারবার করতে হতো, প্রয়োজনীয় লাইব্রেরির অভাবসহ নানা সীমাবদ্ধতা ছিল। ইউনিক্স শেল সাধারণ কাজ-কর্মের জন্য চমৎকার হলেও জটিল লজিক্যাল সমস্যা নিয়ে কাজ করার উপযুক্ত ছিল না।

তাই তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন যে নিজেই একটি প্রোগ্রামিং ভাষা তৈরি করবেন, যা হবে সহজে ব্যবহারযোগ্য, পাঠযোগ্য ও শক্তিশালী। সিডাব্লিউআই-তে তিনি তিন বছর একটি দলের সঙ্গে কাজ করেছিলেন যারা এবিসি (ABC) নামের একটি ইন্টারপ্রেটেড ভাষা তৈরি করেছে। সেই সুবাদে তিনি ইন্টারপ্রেটার তৈরির মৌলিক বিষয়াদি শিখেছিলেন। মৌলিক বিষয়াদি জানা থাকায় তিনি সরাসরি ভাষা তৈরি করা শুরু করে দেন। এবিসি তৈরি হতে মোটামুটি তিন বছর সময় লাগলেও রোসাম মাত্র তিন মাসে পাইথনের একটা কাঠামো দাঁড় করিয়ে ফেলেন। এই তিন মাস তিনি পাইথনের পেছনে পূর্ণ সময় দিতে পারেননি। সিডাব্লিউআই-তে কাজের পাশাপাশি তিনি পাইথন প্রজেক্টে কাজ করেছেন। alt.sources নামের একটি নিউজগ্রুপে ১৯৯১ সালে তিনি প্রথম পাইথন উন্মুক্ত করেন।

পাইথনের ঐ সংস্করণে আধুনিক পাইথনের অনেক কিছুই ছিল। পরিপূর্ণ ইন্টারপ্রেটার, ডিকশনারি, টাপল, ইনডেন্টেশন সবই ছিল। অত্যাবশ্যক ইনডেন্টেশনের নিয়মটি পাইথনে যোগ করা হয়েছিল যাতে সোর্স কোড গোছানো থাকে, এর পাঠযোগ্যতা (readability) বাড়ে। অনেকেই বিষয়টির প্রশংসা করেছেন, আবার অনেকে পছন্দ করেননি। ধীরে ধীরে পাইথন ব্যবহারকারী বাড়তে থাকে, রোসামও উৎসাহ পেতে থাকেন।

রোসাম বিশ্বাস করেন যে, পাইথনের সফলতার পেছনে ডেভেলপারদের সেই মানসিকতাই কাজ করেছে, যে কারণে তিনি পাইথন তৈরি করেছিলেন। ডেভেলপাররা একটি উচ্চস্তরের স্ক্রিপ্টিং ভাষা চাচ্ছিল যা ইউনিক্স শেলের সীমাবদ্ধতাগুলো দূর করতে পারে। মেমোরি ব্যবস্থাপনার জটিলতা ও একই কাজের জন্য বারবার কোড লেখার ঝামেলা এড়াতে ডেভেলপাররা সি ব্যবহার করতে চাইত না। তারা পার্ল (Perl) ও টিসিএল (বা টিকল – Tcl) ভাষা দুটি ব্যবহার করত।

পার্ল ও টিসিএল দুটি ভাষাই বেশ চমৎকার ছিল। কিন্তু রোসাম যে প্রজেক্টে কাজ করতেন সেখানে এ দুটি ভাষা ব্যবহার করার সুযোগ ছিল না। রোসাম তাই পাইথন তৈরির উদ্যোগ নিয়েছিলেন। ছোটখাটো কাজের জন্য পার্ল চমৎকার। কিন্তু পার্লের বড় প্রজেক্ট রক্ষণাবেক্ষণ বেশ কষ্টসাধ্য ছিল। অন্যদিকে পাইথনের সিনট্যাক্স অত্যন্ত পরিষ্কার, বেশ গোছানো। তার ওপর ইনডেন্টেশন অত্যাবশ্যক হওয়ায় কোডের পাঠযোগ্যতাও অনেক বেশি। ডেভেলপাররা তাই পার্লের পাশাপাশি, এবং একসময় সম্পূর্ণভাবে পাইথন ব্যবহার শুরু করে।

পাইথনের ব্যাপক বিস্তৃতির একটি উল্লেখযোগ্য কারণ হচ্ছে, এতে অল্প কোড লিখে অধিক কাজ করা যায়। সি++ বা সি-র তুলনায় অনেক কম কোড লিখে সমপরিমাণ কাজ করা যায়। পাইথনে বড় বড় প্রজেক্টও রক্ষণাবেক্ষণ করা যায় সহজে। ডেভেলপাররা স্বল্প সময়ে বড় প্রজেক্ট করতে তাই পাইথনকে বেছে নেওয়া শুরু করলেন।

পাইথন স্ট্রাকচার্ড, অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড, ফাংশনাল, প্রসিজুরাল ইত্যাদি প্রায় সব ধরনের প্রোগ্রামিং প্যারাডাইম সমর্থন করে। নিজে নিজেই ডেটা টাইপ অনুমান করে নিতে পারে। পাইথন ইন্টারপ্রেটার আছে, এমন যেকোনো মেশিনে চলতে পারে, কোডে কোনো পরিবর্তন করার দরকার হয় না। পাইথনের সবচেয়ে চমৎকার ব্যাপার হচ্ছে, এর একটি বিশাল স্ট্যান্ডার্ড লাইব্রেরি রয়েছে। তৃতীয়পক্ষের লাইব্রেরিও অসংখ্য, যেগুলো অতি সহজেই যেকোনো প্রজেক্টে ব্যবহার করা যায়।

Tk, PyQt, PyGTK ইত্যাদি দিয়ে ডেস্কটপ অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট বেশ ভালোই চলছে। Kivy দিয়ে কিছু কাজ হলেও মোবাইল অ্যাপের বিশাল বাজারে পাইথনের দখল প্রায় নেই বললেই চলে। এটি পাইথনের একটি বড় সীমাবদ্ধতা। বর্তমানে পাইথনের সবচেয়ে বড় বাজার হচ্ছে ওয়েব প্রোগ্রামিং। তুলনামূলকভাবে অনেক সহজ হওয়ায় শিশুদের প্রোগ্রামিংয়ের সাথে পরিচয় করাতে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পাইথন ব্যবহার করা হয়। দৈনন্দিন বিভিন্ন বিরক্তিকর কাজ, যেগুলো বারবার করতে হয়, সেগুলো অটোমেট করতে পাইথন ব্যবহার করা হচ্ছে।

গুগল, ফেসবুক, নাসা, আইবিএম, ডিজনির মতো বড় বড় কোম্পানি পাইথন ব্যবহার করে। ড্রপবক্স, ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউব ইত্যাদি বিশাল বিশাল ওয়েবসাইটে পাইথন ব্যবহার করা হয়েছে। কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা, মেশিন লার্নিং, বিজ্ঞান ও গণিত-সংক্রান্ত গবেষণায় পাইথনের ব্যবহার অত্যন্ত ব্যাপক। গণিত, পরিসংখ্যান ইত্যাদি বিষয়ে পড়াশোনা করা ব্যক্তিগণ সাধারণত প্রোগ্রামিংয়ে এত বেশি সময় দিতে পারেন না। পাইথন খুব সহজ হওয়ায় তারা দ্রুত পাইথন শিখে তাদের কাজে লাগাতে পারেন। তাই যারা কম্পিউটার বিজ্ঞান বা তৎসংশ্লিষ্ট বিষয়ে পড়াশোনা করেন না, তাদের বেশিরভাগ প্রোগ্রামিং ভাষা হিসেবে পাইথনকে পছন্দ করেন।

বর্তমানে পাইথনের ব্যবহার এত ব্যাপক যে, হঠাৎ এর হারিয়ে যাওয়ার বা নতুন কোনো ভাষা দিয়ে প্রতিস্থাপিত হয়ে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনা অন্তত নিকট ভবিষ্যতে নেই। তাই যাদের ইচ্ছা আছে, তারা নির্দ্বিধায় পাইথন দিয়ে কাজ করা শুরু করতে পারেন। পাইথনের ভবিষ্যত নিয়ে আপাতত চিন্তা করতে হবে না।

বাংলা ভাষায় পাইথন শেখার জন্য ইন্টারনেটে বেশ কিছু রিসোর্স রয়েছে – 

লেখক – মোশারফ হোসেন।

অ্যালগরিদম কী?

অ্যালগরিদমের সঙ্গে কমবেশি আমরা সবাই পরিচিত। অ্যালগরিদমের পেছনের ইতিহাস যদিও আমরা অনেকেই জানি না। যাহোক, এখানে আমরা অ্যালগরিদমের একটি প্রাথমিক ধারণা পাওয়ার চেষ্টা করব।

মুহাম্মদ ইবন মুসা আল-খাওয়ারিজমি ৭৮০ খ্রিস্টাব্দে বৃহত্তর খোরাসানের খাওয়ারেজম অঞ্চলে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন একাধারে প্রখ্যাত গণিতবিদ, জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও ভূগোলবিদ। তিনি ভারতীয় দশভিত্তিক সংখ্যাপদ্ধতি নিয়ে একটি বই লিখেন যা ল্যাটিনে অনুবাদ করা হয় ‘Algoritmi de numero Indorum’ নামে। আল-খাওয়ারিজমি নামটি যখন ল্যাটিনে রূপান্তর করা হয়, তখন এটি হয়ে যায় ‘Algoritmi’। মূল বই লেখার প্রায় ৩০০ বছর পর এই অনুবাদটি করা হয়েছিল। এই বইটিই প্রথম দশভিত্তিক সংখ্যা ও এর বৈশিষ্টসমূহ ইউরোপে পরিচিত করে তোলে। এর ফলে জটিল রোমান সংখ্যার পরিবর্তে ইউরোপে এবং ক্রমে সারাবিশ্বে দশভিত্তিক সংখ্যাপদ্ধতি প্রচলিত হয়।

খাওয়ারিজমির নামানুসারে সংখ্যাপদ্ধতিটির নাম রাখা হয় Algorismus, যা ইংরেজিতে হয় Algorism। ১৩ শতকের দিকে Algorism শব্দটি ইংরেজি ভাষায় প্রবেশ করে। তৎকালিন উল্লেখযোগ্য অনেকেই, যেমন: জেফ্রি চসার (Geoffrey Chaucer) শব্দটি ব্যবহার করেছেন। গ্রিক শব্দ এরিথমস (ἀριθμός) অর্থ সংখ্যা। ১৫ শতকে এই শব্দের প্রভাবে ল্যাটিন Algorismus হয়ে যায় Algorithmus। ইংরেজি শব্দটিও তখন পরিবর্তিত হয়ে হয় Algorithm।

১৯ শতকের শেষভাগ পর্যন্ত Algorithm শব্দের অর্থ ছিল দশমিক সংখ্যা পদ্ধতি। ল্যাটিন Algorithmus অর্থও তাই ছিল। ২০ শতকের শুরুর দিকে এর অর্থ বদলে বর্তমান প্রচলিত অর্থটি আসে। এ সময় অ্যালান টুরিং আবিষ্কার করেন যে যন্ত্র অ্যালগরিদম অনুসরণ করে জটিল সমস্যা সমাধান করতে পারে। এটিই ছিল কম্পিউটার যুগের সূচনা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তিনি একটি যন্ত্র আবিষ্কার করেন যা অ্যালগরিদম অনুসরণ করে জার্মানদের এনক্রিপ্ট করা কোড (এনিগমা (Enigma) কোড) ক্র্যাক করতে পারত।

যদিও অ্যালগরিদম শব্দটির উৎপত্তি মোটামুটি ৯০০ বছর আগে, বাস্তবে অ্যালগরিদম কিন্তু আরো অনেক পুরোনো। উল্লেখযোগ্য ও বহুল ব্যবহৃত প্রাচীন অ্যালগরিদমের একটি হলো ইউক্লিডের গসাগু নির্ণয়ের অ্যালগরিদম। এই অ্যালগরিদমটি তাঁর এলিমেন্টস গ্রন্থে লিপিবদ্ধ আছে। বইটির রচনাকাল ৩০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ। ইউক্লিডের এই অ্যালগরিদমের বিভিন্ন তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক প্রয়োগ রয়েছে।

আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কল্যাণে আমরা প্রায় ২৪ ঘণ্টাই যন্ত্রপাতিতে ঘেরা। আর যন্ত্রপাতির উল্লেখযোগ্য একটা অংশ বুদ্ধিমান, যেমন: আমাদের ফোন, কম্পিউটার, স্মার্টওয়াচ ইত্যাদি। সাথে অতি প্রয়োজনীয় ইন্টারনেট তো আছেই। এগুলোর সবই চলে অ্যালগরিদম দিয়ে। আমাদের নিত্যব্যবহৃত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউবে রয়েছে অনেক জটিল জটিল অ্যালগরিদম। এই অ্যালগরিদমগুলো এতই বুদ্ধিমান যে আমরা কখন কী দেখতে চাই, কী দেখতে চাই না তা অনুমান করতে পারে।

মানুষ হিসেবে আমরা সবাই বৈচিত্র্যের অধিকারী। সব মানুষের পছন্দ, অপছন্দ আলাদা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর অ্যালগরিদম সবার পছন্দ, অপছন্দ প্রায় নিখুঁতভাবে ঠিক করতে পারছে। মানুষের পরিবর্তনশীল আচরণের কারণে অবশ্য মাঝে মাঝে গণ্ডগোল হয়। সেই ভুল থেকেও অ্যালগরিদম শিখতে পারে (মেশিন লার্নিং ও কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা এক্ষেত্রে জড়িত)। অ্যালগরিদমের আরেকটি পরিচিত ও সহজ উদাহরণ হচ্ছে অনলাইন কেনাকাটার ওয়েবসাইটগুলো। বিভিন্ন আকর্ষণীয় পণ্যের যে রেকমেন্ডেশন দেখি সেগুলো সবই অ্যালগরিদমের খেল।

অনেক সময় একই কাজের জন্য বিভিন্ন অ্যালগরিদম থাকে। সেক্ষেত্রে অন্যান্য কিছু বিষয় বিবেচনা করে সঠিক অ্যালগরিদম বাছাই করতে হয়। আমরা ম্যাপ ব্যবহার করে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়ার দিকনির্দেশনা পেয়ে থাকি। এক্ষেত্রে প্রথম যে বিষয়টি বিবেচনা করা হয়, সেটি হচ্ছে সর্বনিম্ন দূরত্ব। আবার সর্বনিম্ন দূরত্ব হয়তো একটা পায়ে চলার পথে, কিন্তু ব্যবহারকারী যেতে চাচ্ছেন গাড়িতে। সেক্ষেত্রে গাড়ি চলার উপযোগী রাস্তা বিবেচনা করতে হয়। গাড়ি চলার উপযোগী একাধিক রাস্তা থাকতে পারে। তখন রাস্তাগুলোর দূরত্ব ও ট্রাফিকের অবস্থা দেখে দ্রুততম রাস্তাটি বাছাই করা হয়।

অ্যালগরিদম যত সহজ বা যত কঠিনই হোক, সবগুলোর স্রষ্টা কিন্তু মানুষই। আবার অ্যালগরিদমের সীমাবদ্ধতা থাকতে পারে। পৃথিবী প্রতিদিন হাজার হাজার নতুন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। আমরা সেগুলো সমাধান করে সমাধানটিকে একটি অ্যালগরিদমে রূপান্তরিত করতে পারি, যদি সমাধানটি আরো মানুষের কাজে লাগার সম্ভাবনা থাকে। সে জন্য আমাদের দরকার সমস্যা সমাধানের দক্ষতা।

সমস্যা সমাধানের দক্ষতা একদিনে তৈরি হয় না। নির্দিষ্ট কোনো বই পড়েও হয় না। এটা বহুদিনের চর্চার, বহু পরিশ্রমের ফল। তাই ছাত্রজীবনে অলস হলে চলবে না। অ্যালগরিদম আপনার আমার মতোই ১.৩ – ১.৪ কেজি মস্তিষ্কের মানুষের তৈরি, তাই এগুলোকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। অ্যালগরিদম শেখার সময় এর পেছনের মৌলিক ধারণাটি বুঝতে হবে। অ্যালগরিদম কীভাবে কাজ করে জানার পাশাপাশি কেন করে তা বোঝা জরুরি। কেন প্রশ্নের উত্তর না জানলে কীভাবের উত্তর অল্পদিনেই ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

আমরা বাংলাদেশি ছাত্র-ছাত্রীরা সাধারণত অ্যালগরিদমকে ভয় পাই, একে অন্য পর্যায়ের একটা কিছু মনে করি। এতে স্বাভাবিকভাবেই ভয় এসে গ্রাস করে। আমাদের দৈনন্দিন জীবনেও অ্যালগরিদম আছে। কোনো কাজ করার ধাপগুলো সাজিয়ে ফেললেই অ্যালগরিদম হয়ে যায়, কাজেই একে অন্য পর্যায়ের কিছু ভেবে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। আমাদের যা করতে হবে তা হলো চিন্তা। সমস্যা হচ্ছে এই চিন্তার ক্ষেত্রেই আমরা দুর্বল। আমরা অপ্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে প্রচুর চিন্তা করি, কাজের চিন্তা করতে গেলেই আমাদের মাথা হ্যাং করে। এই সমস্যা চাইলেই দূর করা যায়। যারা দূর করতে পেরেছেন, তারাই জীবনে কিছু করতে পেরেছেন বা পারবেন।

লেখকঃ মোশারফ হোসেন।

ডেটাবেজে পাসওয়ার্ড সংরক্ষণ – ১

ডেটাবেজে নিরাপদভাবে পাসওয়ার্ড সংরক্ষণ করা।

একবার একটা ওয়েবসাইটে ভুল পাসওয়ার্ড দিয়েছিলাম। সঙ্গে সঙ্গে পাসওয়ার্ড যে ভুল, সেই এরর মেসেজ স্ক্রিনে চলে আসল – “Hi subeen, your given password doesn’t match with the correct password a1b2c3. Please try again!”. ওই ওয়েবসাইটের প্রোগ্রামার আসলেই অনেক পরোপকারী (এর মানে হচ্ছে হেল্পফুল)। তো সবাই আবার ব্যবহারকারীর জন্য এত বেশি চিন্তা করে না। কয়েকবছর আগে বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় ইকমার্স ওয়েবসাইটে (যেখান থেকে সবাই বই কিনে) পাসওয়ার্ড ভুলে যাওয়ায় সেটা রিসেট করতে দিই। তখন ইমেইলে ওরা সঠিক পাসওয়ার্ড পাঠিয়ে দেয়। কী চমৎকার, আমার আর কষ্ট করে নতুন পাসওয়ার্ড দিতে হলো না। বুঝা গেল যে তাদের প্রোগ্রামাররাও বেশ ভালো মানুষ, ব্যবহারকারীদের বেশি কষ্ট দিতে চান না। কিন্তু একটা কথা আছে, বেশি ভালো ভালো না। এজন্যই আজকের এই আর্টিকেল।

ডেটাবেজে আসলে পাসওয়ার্ড কখনও সরাসরি সংরক্ষণ করতে হয় না। করলে কী সমস্যা? অনেকেই একই পাসওয়ার্ড বিভিন্ন জায়গায় ব্যবহার করে। এখন কেউ যদি ডেটাবেজে প্রবেশ করে একজনের পাসওয়ার্ড জেনে যায়, তাহলে তার একাউন্ট হ্যাক হয়ে গেলো। আবার ওই ব্যক্তির অন্যান্য ওয়েবসাইটের একাউন্টেও ওই পাসওয়ার্ড দিয়ে ঢুকে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল, যদি সে অন্য জায়গায়ও একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে। তাই ডেটাবেজে কখনো সরাসরি পাসওয়ার্ড সেভ করতে হয় না। তাহলে উপায় কী?

ডেটাবেজে পাসওয়ার্ড সেভ করার জন্য সাধারণত পাসওয়ার্ডকে একটি হ্যাশ ফাংশনের মাধ্যমে পরিবর্তন করে তারপরে সেভ করতে হয়। এতে করে কেউ ডেটাবেজে একসেস পেয়ে গেলেও আসল পাসওয়ার্ড জানতে পারবে না। তাহলে একাউন্ট তৈরির সময় পাসওয়ার্ড সেভ করার অ্যালগরিদমটি কীরকম হবে?

  • ধরি অ্যাকাউন্ট তৈরি করার সময় কেউ তার ইউজারনেম u এবং পাসওয়ার্ড p দিল। u ও p এখানে স্ট্রিং।
  • ব্যাকএন্ডে, p-কে একটি হ্যাশ ফাংশনের মাধ্যমে আরেকটি স্ট্রিং hp-তে রূপান্তর করা হলো। এমন হ্যাশ ফাংশন ব্যবহার করতে হবে যেন, hp জানলে কেউ সেটি থেকে p বের করতে না পারে।
  • ডেটাবেজে ইউজারনেম u এবং পাসওয়ার্ড hp সেভ করা হলো।

এখন ধরা যাক একাউন্ট তৈরি করা হয়ে গেছে। লগিন করার সময় কীভাবে পাসওয়ার্ড পরীক্ষা করতে হবে?

  • লগিন করার সময় ইউজারনেম u এবং পাসওয়ার্ড p দেওয়া হলো।
  • একাউন্ট তৈরির সময় পাসওয়ার্ডের জন্য যেই হ্যাশ অ্যালগরিদম ব্যবহার করা হয়েছিল, একই অ্যালগরিদম ব্যবহার করে p-কে p1-এ রূপান্তর করতে হবে।
  • ডেটাবেজে কুয়েরি চালিয়ে ইউজারনেম u-এর সাথে পাসওয়ার্ড যেটি আছে, সেটি বের করে আনা হলো। ধরা যাক, সেটি হচ্ছে p2.
  • p1 ও p2 স্ট্রিংদুটি যদি সমান হয়, তাহলে পাসওয়ার্ড সঠিক।

এখন কথা হচ্ছে, আমরা কীরকম হ্যাশিং অ্যালগরিদম ব্যবহার করবো? হ্যাশিংয়ের জন্য বিভিন্ন রকম অ্যালগরিদম রয়েছে, এর মধ্যে কিছু অ্যালগরিদম অনেক শক্তিশালী, আবার কিছু হচ্ছে অপেক্ষাকৃত দুর্বল। তাই বিষয়টি জেনেশুনে ব্যবহার করতে হবে। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ভাষায় হ্যাশিংয়ের জন্য লাইব্রেরি থাকে এবং সেখানে বিভিন্ন অ্যালগরিদম ইমপ্লিমেন্ট করে দেওয়া থাকে। তাই নিজে নতুন করে ইমপ্লিমেন্ট না করে লাইব্রেরি ফাংশন ব্যবহার করতে হবে, তাহলে বাগ থাকার সম্ভাবনা অনেক কমে যাবে।

এই লেখায় আমি ডেটাবেজে পাসওয়ার্ড সংরক্ষণ করার যেই ধারণা দিলাম, এটি হচ্ছে মূল ধারণা। তবে এর সঙ্গে কিছু জিনিস সংযোগ করে বিষয়টি আরো নিরাপদ করা যায়। পরবর্তী কোনো সময়ে সেই বিষয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করার ইচ্ছা রইল।