গো (Go) প্রোগ্রামিং ভাষা

গো (বা গোল্যাঙ্গ) হচ্ছে গুগলের তৈরি একটি প্রোগ্রামিং ভাষা।

গো হচ্ছে গুগলের তৈরি একটি ওপেনসোর্স প্রোগ্রামিং ভাষা। গো (Go) নামটি বেশ কমন হওয়ায় একে গোল্যাঙ্গ (Golang)ও বলা হয়। ২০০৯ সালের নভেম্বর মাসে গো প্রথম রিলিজ করা হয়।

আমি এই প্রোগ্রামিং ভাষার নাম আগে জানলেও কখনও নিজে থেকে ঘাঁটাঘাঁটি করা হয় নি। ২০১৫ সালের মাঝামাঝি যখন সিঙ্গাপুরের গ্রাব (Grab)-এ যোগ দিই, তখন দেখলাম, এখানে ব্যাকএন্ডে গো হচ্ছে মূল প্রোগ্রামিং ভাষা। তার আগো নোডজেএস (Node.JS) ব্যবহার করা হত। যাই হোক, তখন গো শেখা শুরু করলাম। আস্তে-আস্তে জানতে পারলাম যে, বিশ্বের আরো অনেক বড় বড় কোম্পানী (যেমন উবার) তাদের ব্যাকএন্ডে গো ব্যবহার করে। গত চার বছরে ওয়েব-ভিত্তিক সফটওয়্যার তৈরিতে গো-এর ব্যবহার আরো অনেক বেড়েছে। আর গুগল নিজেও এই ভাষা ব্যবহার করছে অনেক জায়গায়।

গো কেন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে?

আমার মতে গো-এর দ্রুত জনপ্রিয় হওয়ার পেছনের কারণগুলো হচ্ছে –
– এটি বেশ সহজ-সরল ভাষা। নতুনদের শিখতে খুব একটা সমস্যা হয় না। আর যারা সি কিংবা অন্য প্রোগ্রামিং ভাষায় কাজ করেছে, তাদের জন্য এটি শেখা আরো সহজ।
– অনেক প্রোগ্রামিং ভাষার তুলনায় গো বেশ দ্রুতগতির।
– গো-তে কনকারেন্সি (concurrency) নিয়ে কাজ করা সহজ। তাই খুব বেশি জটিলতা ছাড়াই অনেক বেশি রিকোয়েস্ট হ্যান্ডেল করা যায়।

গো কেন শিখব?

আমার মতে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের গো শেখার কোনো দরকার নেই, কারণ তখন আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় শেখার থাকে। কিংবা সৌখিন প্রজেক্ট বা ছোটো-খাটো ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরির জন্যও গো শেখার দরকার নেই। কেউ যদি এমন প্রতিষ্ঠানে যোগ দেয় যেখানে গো ব্যবহার করা হয়, এটি গো শেখার প্রধান কারণ হতে পারে। আরেকটি কারণ হতে পারে কেউ যদি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন (কিংবা মোবাইল অ্যাপের জন্য ওয়েব ব্যাকএন্ড) তৈরি করে যেখানে মিলিয়নের বেশি (দশ লক্ষের বেশি) ব্যবহারকারী, তখনও হয়ত গো ব্যবহার করা যেতে পারে। যেমন, গ্র্যাবে আমি যখন যোগ দেই, তখন একটি সার্ভিস নোডজেএস-এ চলছিল, তখন ওই সার্ভিসের জন্য ২৩টি সার্ভার (AWS EC2) ব্যবহার করা হতো। ওই সার্ভিসটি যখন আবার গো-তে লেখা হলো (কোনো লজিক্যাল পরিবর্তন ছাড়াই), তখন একই কনফিগারেশনের মাত্র তিনটি সার্ভারই সেই লোড সামলাতে পারত।

গো কিভাবে শিখব?

আমি ধরে নিচ্ছি, যে গো শিখবে, সে ইতিমধ্যে কমপক্ষে একটি প্রোগ্রামিং ভাষায় কয়েকবছর কাজ করেছে।

প্রথমেই গো ট্যুরের ওয়েবসাইটে গিয়ে ট্যুর শেষ করে ফেলতে হবে। এটি শুরু করার জন্য চমৎকার।

তারপরে বই পড়তে চাইলে Go Programming Language বইটি পড়া যেতে পারে। বইটে বেশ ভালো এবং আমার মতে পড়া উচিত।

এখন, কেউ যদি অনলাইন কোর্স করতে স্বাচ্ছন্দবোধ করে, তাহলে কোর্সেরাতে গো-এর তিনটি কোর্স আছে, সেগুলো করে ফেলতে হবে। এই কোর্সগুলো আমি করেছি, ভালোই লেগেছে।

এরপর Go by Example ওয়েবসাইটে গিয়ে প্রতিটি উদাহরণ পড়ে বুঝতে হবে এবং সঙ্গে সঙ্গে কোড করতে হবে। দেখে কোড করলেও সমস্যা নেই, চর্চাটা তো হবে।

এরপর Effective Go পড়তে হবে। এটি পড়ার সময় ঘুম আসে, তাও পড়তে হবে। এটি ঠিকঠাক পড়ার পরে গো-তে কাজ শুরু করে দেওয়া যাবে।

কারো কারো মনে হতে পারে, একটা সহজ-সরল প্রোগ্রামিং ভাষা শেখার জন্য এত কষ্ট করব? আসলে একটু কষ্ট করে ভালোভাবে শিখে নিলে কাজের মান অনেক ভালো হবে, আর সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাই ভালোভাবে শেখাই ভালো।

Facebook Comments

Leave a Reply