প্রোগ্রামিং আপনার জন্য নয়

যে ১০টি লক্ষণ থাকলে বুঝতে হবে প্রোগ্রামিং আপনার জন্য নয়

প্রোগ্রামিংয়ে আগ্রহীদের একটি কমন প্রশ্ন হচ্ছে—আমি কি প্রোগ্রামিংয়ে সফল হতে পারব? যখন কেউ ক্যারিয়ার বদলাতে চায়, বা সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টে আগ্রহী হয় এবং এ দিকে আসতে কী লাগবে তা জানতে কৌতূহলী হয়, তখন প্রোগ্রামিংয়ের প্রশ্নটিই সবার প্রথম চলে আসে।

কম্পিউটিংয়ে আনুষ্ঠানিক লেখাপড়া ছাড়া কাউকে এটি বোঝানো কঠিন। কেউ যদি ভালো প্রোগ্রামার না হয়, তো এটা ভাবা স্বাভাবিক যে সে আসলে ভালো করে শুরুই করেনি। অনেকটা এ রকম যে, আপনি একজন অভিনেতা হতে চান এবং সন্দেহ করেন যে আপনি আসলে ভালো অভিনয় করতে পারবেন কি না।

ফুল-স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপমেন্টের শিক্ষক হিসেবে আমি অনেককেই প্রথমবারের মতো প্রোগ্রামিং করতে শিখিয়েছি। খুশির খবর এই যে, আমি খুব কম সংখ্যক ছাত্রই পেয়েছি যারা প্রোগ্রামিং করতে শেখেনি। আমি প্রোগ্রামিংকে মানুষের মৌলিক দক্ষতা হিসেবে দেখি—পড়া, লেখা, এবং গণিতের মতো। যে কেউ প্রোগ্রামিং করতে পারে, তবে অন্য সবকিছুর মতো এটাও মানুষকে শিখতে হয়।

দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে শিক্ষকতার সুবাদে আমি লক্ষ করেছি বিভিন্ন ছাত্র তাদের উন্নতি নিয়ে চেষ্টা করে, এবং এই প্রচেষ্টায় ঘুরেফিরে কিছু সাধারণ চিত্রই দেখা যায়। আপনি যদি এই তালিকায় চোখ বোলান এবং লক্ষণগুলো নিজের মধ্যে দেখতে পান তো আপনি নিশ্চিত হতে পারেন যে আর যাই হোক, প্রোগ্রামিং আপনার দ্বারা হবে না। আপনার বরং করার জন্য অন্য কোনো কাজ খুঁজে বের করা উচিত। কিন্তু আপনি যদি একেবারেই নাছোড়বান্দা হয়ে থাকেন এবং প্রোগ্রামার হওয়ার লক্ষে অবিচল থাকেন, তাহলে আপনি সহজেই এগুলোর মুখোমুখি হতে পারেন।

নিচের তালিকাটি আপনাকে খুঁজে বের করতে সাহায্য করবে যে আপনি প্রোগ্রামিং করার উপযোগী কি না, এবং এই অবস্থা বদলাতে চাইলে আপনাকে কী করতে হবে।

১) কৌতূহলের অভাব

আপনার যদি কম্পিউটার এবং টেকনোলজির প্রতি আগ্রহ না থাকে, আপনি কখনোই প্রোগ্রামার হিসেবে সফল হতে পারবেন না।

কোনোকিছু শেখার প্রথম শর্ত হচ্ছে, শেখার বিষয়টির প্রতি সক্রিয় আগ্রহ থাকা। আপনার মন যদি প্রযুক্তি নিয়ে কৌতূহলী না হয়, তাহলে সফল প্রোগ্রামার হতে যে গভীর জ্ঞানের প্রয়োজন হয়, আপনার তা অর্জন করার শক্তি থাকবে না।

নিজেকে জিজ্ঞাসা করুন যে সত্যি প্রোগ্রামিং আপনাকে আকৃষ্ট করে কি না। যদি আপনার উত্তর হয় ‘না’, তবে অবশ্যই এমন কিছু খুঁজে বের করা উচিত যা আপনাকে আকৃষ্ট করে। যদি উত্তর হয় ‘হ্যাঁ’, তবে নতুন কিছু খুঁজে বের করুন যা আগে কখনো লক্ষ করেননি।

২) আত্ম-নিয়ন্ত্রণ ও দ্রুত সমাধান খুঁজে বের করার ক্ষমতা না থাকা

আপনি যদি নিজে নিজে প্রবলেম সলভ করার দক্ষতা তৈরি না করেন তো আপনি কখনো প্রোগ্রামার হিসেবে সফল হতে পারবেন না।

এটি নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই যে, সফল ডেভেলপার হতে হলে নিজের শেখার ক্ষমতার প্রতি বিশ্বাস রাখতে হবে। একটি নির্দিষ্ট বয়সের পর কেউ আপনাকে শেখানোর জন্য বাধ্য নয়। এটাই বাস্তবতা। কী জানা প্রয়োজন তা খুঁজে বের করা এবং তথ্য সংগ্রহ করা আপনার নিজের দায়িত্ব।

ইন্টারনেটে দরকারী সব তথ্য পাওয়া যায়। এই বিশাল তথ্যভাণ্ডারে প্রবেশের একটি বিশাল দরজা রয়েছে: গুগল (google.com)। আপনি যা চান তাই গুগলের সাহায্যে পেতে পারেন। এর জন্য শুধু জানতে হবে গুগল কীভাবে ব্যবহার করতে হয়।

ভালো গুগলার হওয়ার পাশাপাশি ডকুমেন্টেশন পড়তে হবে। প্রত্যেক প্রোগ্রামিং ভাষার নিজস্ব ডকুমেন্টেশন ও স্পেসিফিকেশন আছে যা পড়ে স্পষ্ট বোঝা যায় ভাষাটি কীভাবে কাজ করে। এটা অনেকটা অভিধান ব্যবহারের মতো—যখনই আপনি কোনো শব্দের অর্থ জানবেন না, অভিধানে খুঁজুন। দ্রুত ও নির্ভরযোগ্যভাবে প্রোগ্রামিংয়ে দক্ষতা অর্জন করার উপায় হচ্ছে ডকুমেন্টেশন পড়া। একটা ভাষার সবকিছু তার ডকুমেন্টেশনে থাকে।

মনে রাখবেন যে, আপনার প্রয়োজনীয় সব উত্তরই গুগলে খুঁজলে পাওয়া যায়। তাই যখনই কোনো প্রশ্নের সম্মুখীন হবেন, অন্য কাউকে জিজ্ঞাসা করার আগে গুগলে খুঁজে দেখুন এবং ডকুমেন্টেশন দেখুন। যখন আপনি চেষ্টা করেছেন এবং আসলেই উত্তর পেতে ব্যর্থ হয়েছেন তখন কাউকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন।

৩) অধ্যবসায়ের অভাব

সমস্যায় পড়লে আপনি যদি সহজেই হাল ছেড়ে দেন, তাহলে প্রোগ্রামার হিসেবে আপনি কখনোই সফল হতে পারবেন না।

প্রোগ্রামিংয়ের প্রধান উদ্দেশ্যই হচ্ছে সমস্যার সমাধান। কম্পিউটার উদ্ভাবিত হওয়ার এটাই একমাত্র কারণ। যখনই আপনি কোনো প্রোগ্রাম নিয়ে কাজ করবেন, তখনই এক ঝাঁক সমস্যার মুখে পড়বেন। একটি সমাধান করতে না করতেই আরেকটি এসে হাজির হবে। আপনি উন্নতি করছেন, কিন্তু সব সময়ই নতুন সমস্যা আপনার জন্য অপেক্ষা করবে।

একের পর এক সমস্যার মোকাবিলা করা কঠিন ও হতাশাজনক হতে পারে। আপনি যদি এতে বিরক্ত হন তাহলে পরবর্তী সমস্যা মোকাবিলা করার শক্তি পাবেন না। জিনিসগুলো কেন কাজ করছে না এটা খুঁজে বের করা আক্ষরিকভাবেই আপনার দায়িত্ব।

আমার শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থেকে জানি, প্রতি ক্লাসে সাধারণত দু-একজন শিক্ষার্থী থাকে যারা অন্যদের তুলনায় অনেক বেশি সমস্যায় পড়ে। আমি শিক্ষার্থীদের সব সময়ই বলি যে, তারা যত সমস্যায় পড়বে, তাদের গভীরভাবে শেখার সম্ভাবনাও তত বাড়বে। তারা যদি এসব সমস্যার মধ্য দিয়ে গিয়ে সেগুলো বুঝতে পারে তো স্বাভাবিকভাবেই তারা অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠবে। কারণ তারা গড়-পড়তা শিক্ষার্থীদের চেয়ে বেশি সমস্যার মধ্য দিয়ে গিয়েছে এবং সেগুলো সমাধান করেছে।

আপনার জানা প্রয়োজন যে, সমস্যাগুলো আসলে সমস্যা নয়, চ্যালেঞ্জ। প্রত্যেকটি চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা আপনাকে গভীর জ্ঞান দেয়, সেই সাথে নতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করার দক্ষতাও বৃদ্ধি করে।

৪) সমস্যা সমাধানের পর সফলতার অনুভূতি না থাকা

কোনো সমস্যা সমাধানের পর যদি আপনার মাঝে উত্তেজনা ও সফলতার কোনো অনুভূতি না জন্মায় তো আপনি কখনো প্রোগ্রামার হিসেবে সফল হতে পারবেন না।

সহজেই হাল ছেড়ে দেওয়ার কারণ হচ্ছে আপনি যখন একটি সমস্যার সমাধান করবেন তখন অন্যরকম এক ভালোলাগার অনুভূতি না হওয়া। যখন একের পর এক বাগ ও ইস্যু আসতেই থাকে, তখন সমস্যা সমাধানের আনন্দ ধীরে ধীরে কমতে থাকে।

কোনো সমস্যার সমাধান করতে পারলে ডোপামিন (Dopamine) ক্ষরণ হয়। অনেকটা ভিডিও গেমের লেভেল পার হওয়া বা সুডোকু সমাধান করার মতো। আমরা সবাই জানি যে কোনো সমস্যার পেছনে লেগে থাকা ও অবশেষে তা জয় করতে পারার আনন্দ কেমন হয়। আপনি যদি এই আনন্দ অনুভব করতে না পারেন তো প্রোগ্রামিং করার মজাটি আর পাবেন না। আপনি যদি প্রোগ্রামিংকে কোনো সাধারণ কাজ মনে করেন, যেখানে আপনি যেকোনোভাবে একটা ফলাফল পেতে চান, তাহলে আপনি কখনো একজন সফল প্রোগ্রামার হতে পারবেন না।

যখনই আপনি কোনো সমস্যা লড়াই করে সমাধান করবেন, সেটা যত ছোটই হোক, নিজেকে বাহবা দিন। এই অনুভূতি আপনাকে পরবর্তী সমস্যা মোকাবিলা করার শক্তি যোগাবে।

৫) শেখা ও বোঝার ক্ষেত্রে ধৈর্য না থাকা

শেখার ক্ষেত্রে যদি আপনার ধৈর্য না থাকে এবং সবকিছুই দ্রুত ও সহজে শিখতে চান তাহলে আপনি কখনো প্রোগ্রামিংয়ে সফল হবেন না।

মানুষ হিসেবে আমাদের কিছু সীমাবদ্ধতা আছে। যদিও বিশ্ব দ্রুত চলছে এবং কম্পিউটারই এর বড় কারণ, আমরা তত দ্রুতই চলতে পারি যতটুকু আমাদের সাধ্য। আমাদের মস্তিষ্ক একটি নির্দিষ্ট গতিতে কাজ করে। তাছাড়া আমাদের অতীত জীবন, বিশ্বাস, আবেগ, স্বাস্থ্য ইত্যাদির ওপর ভিত্তি করে আমাদের শেখার গতি বিভিন্ন হয়।

অনেক কিছু শেখার আছে, প্রোগ্রামিংয়ে শেখার কোনো অন্ত নেই। কিন্তু জ্ঞান ধারাবাহিক, তাই যাই আপনি জানেন তা খুশি মনে গ্রহণ করুন। বিশ্বাস করুন যে শেখার জন্য প্রত্যেকটি চেষ্টা জ্ঞানের একটি শক্ত ভিত্তি গড়বে, আপনার ক্যারিয়ার আপনাকে যেদিকেই নিক না কেন।

৬) চিন্তা করতে গিয়ে ক্লান্ত/বিরক্ত হয়ে যাওয়া

আপনি যদি চিন্তা করায় অলস হন এবং মনোযোগ দিয়ে চিন্তা করাকে বিরক্তিকর জিনিস মনে করেন তো আপনি কখনো সফল প্রোগ্রামার হতে পারবেন না।

প্রোগ্রামিং একটি চিন্তার কাজ। মানুষ হিসেবে আমরা চিন্তায় পারদর্শী। আমরা সারাদিন চিন্তা করি, তবুও আমরা চিন্তা করায় অলস। একটা বিষয়ে দীর্ঘ সময় চিন্তা করা কঠিন, যদি না আপনি এতে অভ্যস্ত হন।

এর লক্ষণগুলোর মধ্যে আছে স্ক্রিনের দিকে উদাস দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকা, সমস্যা ঝুলিয়ে রাখা, ব্রাউজারের ট্যাব সুইচ করতে থাকা, নিরুপায়ভাবে স্ট্যাকওভারফ্লো ঘাঁটতে থাকা ইত্যাদি। এগুলো প্রকাশ করে যে আপনি আপনার মানসিক ক্ষমতার সীমায় পৌঁছে গেছেন এবং আর চিন্তা না করে যে কোনো পথ বের করতে মরিয়া।

প্রোগ্রামিং করার সময় আপনি ক্লান্ত হয়ে যাবেন। ব্যায়াম করার মতো চিন্তা করতেও শারীরিক শক্তি খরচ হয়। মানসিক পরিশ্রম (চিন্তা) করার অভ্যাস না থাকলে স্থির থাকা কঠিন। কিন্তু এটা জিমে যাওয়ার মতো, যতই যাবেন ততই শক্তিশালী হবেন।

আপনার মস্তিষ্ক একটি পেশির মতো— যতই ব্যবহার করবেন, ততই এটি চিন্তা করতে পারবে। যতই বিভিন্ন বিষয় জানবেন, ততই মানসিক ধারণা বাড়বে, সমাধান খোঁজা তত সহজ হবে।

৭) নিজের জন্য চিন্তা করতে না পারা

আপনি যদি চান যে অন্যরা আপনার জন্য ভাবুক, এবং যদি নিজের অবস্থা ভালো করে দেখতে অনিচ্ছুক হন, আপনি কখনো সফল প্রোগ্রামার হবেন না।

যখন নতুন কিছু শেখেন, এটা সহজেই অনুভব করেন যে মতামত দেওয়ার মতো যথেষ্ট জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা আপনার নেই। পদক্ষেপ নেওয়া বা ভুল করাকে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করেন। ভুল করা নিয়ে আমাদের একটি সহজাত ভয় রয়েছে। ভুল করার এই ভয় যখন কৌতূহল ও অনুসন্ধানকে গ্রাস করে, তখন আপনি সত্যিকার জ্ঞান (অভিজ্ঞতা ও ব্যর্থতা থেকে শেখা জ্ঞান) অর্জন করতে বাধাপ্রাপ্ত হন। যখনই আপনার কোনো পাঠ্যবইয়ের উত্তর বা ব্যক্তির ওপর নির্ভর করতে হয়, তখনই বুঝবেন আপনি ঠিকভাবে কাজ করার মতো যথেষ্ট প্রোগ্রামিং জ্ঞান অর্জন করতে পারেননি।

কোনটা কাজ করে এবং কোনটা করে না, সে বিষয়ে আপনার নিজের মতামত গড়ে তুলতে হবে। আপনাকে জানতে হবে কেন আপনি মনে করেন আপনার সমাধান কাজ করবে, এবং এর উপকারীতা কী। আপনার নিজের সমাধানের পক্ষে যুক্তি প্রদানের ক্ষমতা থাকতে হবে। যদি আপনি সমাধান বদলান, তবে যেন নতুন জিনিসগুলো গ্রহণ করতে পারেন।

নিজের অভিজ্ঞতা ও যৌক্তিক চিন্তন দক্ষতার দ্বারা নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করুন। যুক্তিসংগত অনুমান করুন, একটি অবস্থান নিন এবং নতুন তথ্য এলে তা গ্রহণ করতে প্রস্তুত থাকুন।

৮) অনড়, সংকীর্ণ এবং/বা অগোছালো চিন্তা

মাঝে মাঝে দুটি দিক আমি শিক্ষার্থীদের মাঝে দেখতে পাই। একটি হচ্ছে দৃঢ় এবং সংকীর্ণ চিন্তা। এরা সাহায্য গ্রহণ করতে অস্বীকার করে, ফিডব্যাক দেওয়ার পরও পরিবর্তিত হয় না। সবকিছু এক দিক থেকে বিচার করে এবং যেকোনো পরামর্শ এড়িয়ে যায়।

দ্বিতীয় দিক হচ্ছে অগোছালো চিন্তা। ছাত্ররা অনেক সময় কোনো কিছুকে অযথাই জটিল করে তোলে। তাদের কোড চরম অগোছালো এবং বোঝা কঠিন হয়। সমস্যা নিয়ে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি চিন্তা করে এবং দশ লাইনের জায়গায় একশ লাইন কোড লিখে বসে থাকে।

প্রোগ্রামিং করতে গিয়ে এই দুই মেরু যখন একসাথে হয়, ফলাফল হয় তখন চরম, জোর করে জোড়া-তালি দিয়ে ঠিক করার মতো। যা দরকার তা হলো পুনরায় সমাধানে ফিরে যাওয়া, পুনরায় বিচার করা, প্রথমবার চেষ্টা করা পদ্ধতি বাতিল করা এবং পুনরায় সাজানো।

অন্য সম্ভাবনা দেখতে না পাওয়া বা সমালোচনা ঠিকভাবে গ্রহণ না করা উন্নতির অন্তরায়। অগোছালো হলে আপনার কাজ ধীরগতির হবে। কাজের সার্বিক মানও খারাপ হবে।

আপনাকে পেছনে ফিরে যেতে হবে। কীভাবে এগোচ্ছেন তা দেখতে হবে। কীভাবে আরো ভালো করতে পারেন? এমন কিছু কি করতে পারেন যাতে আপনার জীবন সহজ হয়? কিছু কি বাদ যাচ্ছে যা আপনাকে সাহায্য করতে পারতো?

৯) ভালো ও খারাপ উত্তরের পরিধি না জেনে ‘সঠিক’ উত্তর খোঁজা

আপনি যদি প্রোগ্রামিংকে সমাধানের ক্ষেত্র হিসেবে না বিবেচনা করে শুধু ‘সঠিক’ উত্তর খোঁজার লক্ষে ব্যবহার করেন, আপনি কখনো প্রোগ্রামার হিসেবে সফল হতে পারবেন না।

কোনো দক্ষতা বা প্রোগ্রামিং শেখার সময় অনেকে জানতে চায় যে তারা যা করেছে তা সঠিক কি না। উত্তর হচ্ছে, ”এটা নির্ভর করে”।

বিভিন্ন পরিস্থিতি দেওয়া আছে, কোনটি সঠিক পদ্ধতি হবে? এটি নির্ভর করে পরিস্থিতি ও লক্ষের ওপর। যখনই আপনি প্রোগ্রামিংকে শুধু ভুল ও সঠিকের বিচারক বানাচ্ছেন, তখনই আপনি সৃজনশীলতা বর্জন করছেন। প্রত্যেক উত্তরই সঠিক হতে পারে, যদি উপযুক্ত পরিস্থিতি দিয়ে বিচার করা যায়।

প্রোগ্রামিং হচ্ছে কবিতা বা গল্প লেখার মতো। কোডে নান্দনিকতা ও সৌন্দর্য থাকতে হবে। ‘সঠিক পদ্ধতি’ ও ‘ভুল পদ্ধতি’র চেয়ে আপনার সমাধানটি বাছাইয়ের কারণ এবং সমাধানের পদ্ধতিটিই বেশি গুরুত্বপূর্ণ। শিল্পীমনা হলে একটি নির্দিষ্ট পদ্ধতি নিয়ে চিন্তা করার চেয়ে আপনি বিভিন্ন সম্ভাবনা নিয়ে খেলতে পারেন। এটাই প্রোগ্রামিংয়ের সৌন্দর্য, একটি সমস্যা সমাধানের অনেক পথ থাকে। বিভিন্ন সম্ভাবনা নিয়ে চিন্তার ফল হয় পরিস্থিতি অনুযায়ী উপযুক্ত সমাধানটি ব্যবহার করতে পারা।

১০) খুঁটিনাটিতে মনোযোগ না দেওয়া

আপনি যদি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিষয়গুলোতে মনোযোগ না দেন তো সফল প্রোগ্রামার হতে পারবেন না।

কম্পিউটার সূক্ষ্ম যন্ত্র। কম্পিউটার প্রোগ্রাম করার সময় প্রয়োজনীয় কমান্ড এমনভাবে দিতে হয় যেন কম্পিউটার গ্রহণ পারে। নাহলে কম্পিউটার কাজ করবে না। এক্ষেত্রে মাঝামাঝি ধরনের কিছু নেই—হয় কাজ করবে, নয় করবে না।

এর মানে এই যে, যখন প্রোগ্রামিং করবেন তখন খুঁটিনাটির দিকে মনোযোগ দিতে হবে। প্রত্যেকটি স্পেস, ব্র্যাকেট, বা সেমিকোলন নিয়ম মতো দিতে হবে। জায়গা ছাড়া কিছু বসাবেন, কিছুই কাজ করবে না। কম্পিউটার যখন কোনো এরর দেখায়, আপনাকে সেটা মনোযোগ দিয়ে দেখতে হবে এবং বুঝতে হবে এতে আসলে কী বলছে। আপনি যদি তা না করেন, তাহলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ভুল খুঁজে মরতে হতে পারে।

খুঁটিনাটি সবই লক্ষ রাখতে হবে, আপনাকে সেটা মানতে হবে। যখন মানবেন, তখন আপনি আপনার কোড স্ক্যান করে সব ত্রুটি দূর করতে পারবেন। এমন টুল ব্যবহার করতে পারবেন যা দ্রুত ইস্যু বের করতে আপনাকে সাহায্য করবে।

বোনাস: ব্যবসায়ী-মনস্ক হওয়া

এটি একটি পার্শ্ব-পর্যবেক্ষণ। যেসব শিক্ষার্থী ব্যবসায়ী-মনস্ক হয় তারা বেশিরভাগই পদ্ধতির চেয়ে ফলাফলের ওপর জোর দেয়। এমন কিছু চায় যা তাদের ব্যবসা প্রসারিত করবে। দীর্ঘ সময় ধরে কিছু শেখাকে তারা তাদের লক্ষ অর্জনের বাধা হিসেবে দেখে।

এ ধরনের শিক্ষার্থীদের প্রোগ্রামার হিসেবে গড়ে তোলা কঠিন। তাদের মধ্যে একটা অস্থিরতা কাজ করে। সত্যিকারভাবে প্রযুক্তিকে জানতে যে শিক্ষা প্রয়োজন তা গ্রহণে তারা অনিচ্ছুক হয়। প্রযুক্তিকে তারা কোনো কাজ সম্পন্ন করার মাধ্যম হিসেবে (প্রান্তিক ব্যবহারকারী) দেখতে পছন্দ করে।

আমি দেখেছি কিছু শিক্ষার্থী খুব বেশি ব্যবসা-মনস্ক, শিখতে হিমশিম খায়। মাঝে মাঝে তারা দ্রুত ফ্রিল্যান্স ক্লায়েন্টের কাছ থেকে এমন কাজ নিয়ে বসে যেটা নিজে করতে পারবে না। তারপর সেটা করার জন্য বিভিন্ন রিসোর্স/টেমপ্লেট খুঁজে মরে বা কাজটিই অন্য কাউকে দিয়ে দেয়। তারা প্রোগ্রামার হিসেবে ভালো নয়, কিন্তু কাজ যোগাড় করতে পারে দক্ষতার সাথে।

তো আমি যা যোগ করব, শিক্ষার্থীরা যারা ব্যবসা করতে ইচ্ছুক, বিক্রি করতে দক্ষ, লোক পটাতে ওস্তাদ, তারা হয়তো অন্যদের চেয়ে বেশি যুদ্ধ করবে প্রোগ্রামিং করতে গিয়ে। তাদের প্রকৃতিই হচ্ছে আর্থিক সুযোগ খোঁজা। প্রোগ্রামিংয়ের মতো দীর্ঘ সময়ের খুঁটিনাটিযুক্ত বিষয় তাদের অধৈর্য করে তোলে।

উপসংহার

যদিও প্রোগ্রামিং শেখা কঠিন হতে পারে, এটা নিশ্চিত যে বেশিরভাগ লোক এটি শিখতে পারে। ওপরের তালিকার বিষয়গুলো পথে বাধা হতে পারে, কিন্তু বেশিরভাগ লোক এগুলোকে চাইলে এড়াতে পারে এবং এক্সপার্ট না হলেও মোটামুটি ভালো মানের প্রোগ্রামার হতে পারে।

আপনি যদি প্রোগ্রামিং শিখতে আগ্রহী হন, আমি শিখতে উৎসাহিত করব। ওপরের তালিকাটি মাথায় রাখুন, এবং ইন্টারনেটের বিভিন্ন উৎস থেকে আজই শেখা শুরু করুন। আশা করি পস্তাবেন না।

অনুবাদ – মোশারফ হোসেন।

[Jonathan Bluks রচিত মূল লেখাটি পাওয়া যাবে এখানেhttps://bit.ly/2DdU6VF]

Facebook Comments

Leave a Reply