ক্যারিয়ার এডভাইজ – ৪

[থেরাপ সার্ভিসেস লিমিটেড কর্তৃক আয়োজিত নিয়মিত ওয়েবিনারের একটি পর্ব ছিল প্রোগ্রামিং ক্যারিয়ার নিয়ে। সেখানে বক্তা ছিলেন থেরাপের প্রধান কারিগরি কর্মকর্তা (সিটিও) মোজাহেদুল হক আবুল হাসনাত (মাসুম)। থেরাপ কর্তৃপক্ষের অনুমতিক্রমে সেই ওয়েবিনার থেকে টেক্সটে রূপান্তর করে আমার ব্লগের পাঠকদের জন্য পোস্ট করলাম। এটি চতুর্থ ও শেষ পর্ব।]

ইন্ডাস্ট্রি এখন কোন দিকে যাচ্ছে
ইন্ডাস্ট্রি এখন ক্লাউড ভিত্তিক SaaS টাইপ প্রোডাক্ট এর দিকে যাচ্ছে। অর্থাৎ এখন নতুন সফটওয়্যার ডেভেলপ হলে সেটা ক্লাউডের মাধ্যমে করে, আর ইউজাররা ওয়েবের মাধ্যমে সফটওয়্যার ব্যবহার করে এবং মাসিক বা বাৎসরিক ফি প্রদান করে। SaaS মডেলটা বর্তমানে বেশ জনপ্রিয়। এরপর আছে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশান। এটা সম্পর্কে তোমরা সবাই জান। কিন্তু একটা জিনিস আমরা অবহেলা করি, সেটা হল, আমি শুনেছি, কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে জাভা’র পরিবর্তে অ্যান্ড্রয়েড এর কোর্স করাচ্ছে। এটা আসলে ঠিক না। শুধু মোবাইল অ্যাপ্লিকেশান ডেভেলপমেন্ট করলে তো হবে না, মোবাইলটা হলে ফ্রন্টএন্ড। সব অ্যাপ্লিকেশানের ব্যাকএন্ড আছে, তো ব্যাকএন্ডটাও করতে হবে। কাজেই শুধু মোবাইল ডেভেলপমেন্ট শিখলে হবে না, ব্যাকএন্ডও শিখতে হবে। বর্তমানে ক্লাউডের জনপ্রিয়তার কারণে ভালো কোন আইডিয়া গ্রাহকদের কাছে খুব সহজেই পৌঁছান যায়। PaaS এর মাধ্যমে খুব সহজেই সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট করা যায়। যেমনঃ তুমি যদি গুগল অ্যাপ ইঞ্জিন শিখো তবে এটাতে ডাটাবেজও আছে, ওয়েব ডেভেলপমেন্টের সব কিছুই আছে এবং একটা ল্যাঙ্গুয়েজের উপর ভিত্তি করে একটা প্রোডাক্ট তৈরি করতে পার এবং এই প্রোডাক্টটা ১০ জন ইউজার ব্যবহার করলে যে কার্যকারিতা দেখাবে ১০ লক্ষ ইউজার ব্যবহার করলেও একই কার্যকারিতা দেখাবে।

যেই যেই ল্যাঙ্গুয়েজ এখন জনপ্রিয়
জাভা অনেক দিন আগের থেকেই জনপ্রিয়। রুবি, পাইথন, জাভাস্ক্রিপ্ট। জাভাস্ক্রিপ্ট গত ৫/৬ বছরে খুবই জনপ্রিয় হয়ে গেছে। সি# এবং পিএইচপি বাংলাদেশে অনেক চাহিদা। লোকাল কোম্পানিগুলো অনেক বেশি ডট নেট এবং পিএইচপি ব্যবহার করে। যারা লোকাল কোম্পানিতে কাজ করতে চাও, তারা এগুলো শিখতে পার। যেহেতু এগুলো সহজ এবং অনেক লোক এগুলো উপর কাজ করে, যদিও কাজও অনেক কিন্তু অনেক প্রতিযোগিতাও আছে। তাই শত শত প্রোগ্রামার থেকে ভাল প্রোগ্রামার খুঁজে বের করা বেশ কঠিন। বাংলাদেশে জাভা, রুবি, পাইথন এইসব প্রোগ্রামার খুব বেশি নাই, তাই তোমরা যারা এই সব ল্যাঙ্গুয়েজে ভাল করবা, তারা ভাল জব পাবা। বর্তমানে ফাংশনাল প্রোগ্রামিংও জনপ্রিয়। আর এ প্রোগ্রামিং করার প্লাটফরম হচ্ছে node.js এবং Scala। node.js হচ্ছে জাভাস্ক্রিপ্ট দিয়ে ব্যাকএন্ডে কাজ করার প্লাটফরম। এটাও বেশ জনপ্রয় হচ্ছে। অনেকগুলো নোএসকিউএল ডাটাবেজ আছে। এর মধ্যে MongoDB সবচেয়ে জনপ্রিয়।

java-151343_640
জাভা ওয়ার্ল্ড
যেহেতু থেরাপ জাভা ভিত্তিক। তাই জাভা সম্পর্কে কিছু বলতে চাই। অনেক মিথ আছে বাংলাদেশে, যেমন জাভা একটি মৃত ল্যাঙ্গুয়েজ অর্থাৎ জাভার জনপ্রিয়তা কম। বাংলাদেশের লোকাল ইন্ডাস্ট্রির সাপেক্ষে এটা সত্য। কারণ, লোকাল কোম্পানি গুলো ডট নেট বেশি ব্যবহার করে তারপর পিএইচপি। কিন্তু বিশ্বব্যাপী চিন্তা করলে জাভা হচ্ছে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ল্যাঙ্গুয়েজ – তাইওবি(TIOBE) এর ভিত্তিতে। প্রথম ল্যাঙ্গুয়েজ হচ্ছে সি। আর জাভা হচ্ছে এন্টারপ্রাইজ ওয়ার্ল্ডে ১ নম্বর ল্যাঙ্গুয়েজ। জাভার কতগুলো ফ্রেমওয়ার্ক আছে। যারা জাভা নিয়ে ক্যারিয়ার গড়তে চাও, তারা ফ্রেমওয়ার্কগুলো শিখে ফেলতে পার। স্প্রিং হচ্ছে সবচেয়ে জনপ্রিয় জাভা ফ্রেমওয়ার্ক। স্প্রিং একটি বিশাল ফ্রেমওয়ার্ক। তবে মজার বিষয় হচ্ছে, পুরোটা একসাথে শেখার দরকার নাই। একটু একটু করে শিখলেই চলবে। যারা স্প্রিং দিয়ে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশান বানাতে চাও, তারা স্প্রিংএমভিসি  শিখতে পার। JEE হচ্ছে Java Enterprise Edition, এটাও একটা ফ্রেমওয়ার্ক। এটাও শিখতে পার। হাইবারনেটও শিখতে পার। জাভা ওয়ার্ল্ডে কিছু টুল ব্যবহার করা হয়। এখানে দুইটা টুলের কথা উল্লেখ করলাম। একটা Ant আর একটা Maven. ছাত্র অবস্থায়ই এগুলো শিখে রাখা ভাল।

বাংলাদেশে কী করা যায়
বাংলাদেশে বেশ কিছু ভাল সফটওয়্যার কোম্পানি আছে। কিন্তু কোম্পানিগুলো ছোট। ছোট মানে কোম্পানিগুলোতে হয়ত ১০০/২০০ বা ২০/৩০ জন কর্মী আছে। কাজেই অনেক মানুষ এসব কোম্পানি সম্পর্কে জানে না। পেপারে হয়তো এদের ছবি দেখনা, টিভিতে হয়তো এদের এড দেখ না। কিন্তু এরা যথেষ্ট ভাল কোম্পানি। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, কোম্পানিগুলো ভালো লোক খুঁজছে, থেরাপ তো খুঁজছেই সাথে আরও যেসব ভাল কোম্পানি আছে, তারাও ভাল প্রোগ্রামার, টেস্টার খুঁজছে, কিন্তু পাচ্ছে না। আবার অনেক ভাল প্রোগ্রামার, টেস্টারও আছে যারা ভালো কোম্পানি খুঁজে পায়নি। ভালো কোম্পানি না পেয়ে হয়তো কোন বাজে কোম্পানিতে ঢুকে পরে। তাই তোমাদেরকে ভাল করে খোঁজ খবর নিতে হবে। বাংলাদেশে বেশ কিছু সফটওয়্যার কোম্পানি আছে যারা বড় হতে পারছে না বা বড় হবার লিমিটিং ফ্যাক্টর হচ্ছে ভালো লোক পাচ্ছে না। এদের হাতে প্রচুর কাজ আছে, প্রচুর প্রোজেক্ট আছে, প্রচুর প্রোডাক্ট তৈরি করতে পারবে, অনেক কাজ নিয়ে আসতে পারবে। কিন্তু এই কাজ করার জন্য যে পরিমাণ লোক দরকার সেই লোকজন নাই। এটা হচ্ছে সবচেয়ে বড় লিমিটিং ফ্যাক্টর কোম্পানিগুলোর জন্য। যারা চাকরি করতে চাও না, তাদের জন্যও এখন খুব ভালো সময়। যাদের মাথায় ভালো সফটওয়ারের আইডিয়া আছে, প্রোডাক্টের আইডিয়া আছে তারা স্টার্টআপ করতে পার। বাংলাদেশে এখন ছোটখাট বেশকিছু স্টার্টআপ আছে, যারা ৩/৪ জন মিলে একটা স্টার্টআপ তৈরি করে, বা কিছু প্রোডাক্ট তৈরি করে, গেমস তৈরি করে। অর্থাৎ স্টার্টআপ করার জন্য এখন সবচেয়ে ভাল সময়।