উন্নয়নশীল দেশের জন্যে ফেসবুকের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপে পরিবর্তন

facebook-645x250

ফেসবুক প্রায় দু বছর আগে ঘোষণা করেছিল যে তারা তাদের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মকে মোবাইল কেন্দ্রিক হিসেবে গড়ে তুলবে। এ উদ্দেশ্যে তারা অনেক কাজই করেছে তবে এবার তারা নজর দিয়েছে স্বল্পোন্নত এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোতে যেখানে কিনা ইন্টারনেট ডাটার খরচ প্রচুর। আর তাই তারা তাদের ফেসবুক অ্যাপটি নতুন করে গঠন করেছে।

ফেসবুক সম্প্রতি এ বছরের শুরু দিকে আফ্রিকায় কিছু গবেষণা চালিয়েছে। তারা লক্ষ্য করেছে কিভাবে করে তাদের ফেসবুক অ্যাপ আফ্রিকায় ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এই গবেষণার কারন এখানে অধিকাংশ মানুষই নিম্নমানের অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন ব্যবহার করে থাকে এবং মোবাইল নেটওয়ার্ক সাধারণ মানের। তাই এই অঞ্চলের মানুষরা ফেসবুক কিভাবে ব্যবহার করে সে গবেষণা থেকে কিভাবে করে তাদের মধ্যে ফেসবুক ব্যবহার কিভাবে করে বাড়ানো যায় তাও উঠে আসবে। আর এই গবেষণার ফলাফল হল নতুন অ্যান্ড্রয়েড আপডেট যা কিনা ফেসবুকের দাবিমতে নানা ক্ষেত্রে কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করবে। এর মধ্যে যে সকল বিষয়গুলো আছে তা হল-

  • অ্যাপটি চালু হতে ৫০ শতাংশ কম সময় নিবে
  • অ্যাপটি ৫০ শতাংশ কমে ইন্টারনেট ডাটা খরচ করবে
  • ফেসবুকে অ্যাপের ইমেজ লোড ব্যর্থতার পরিমাণ ৯০ শতাংশ হ্রাস করবে
  • অ্যাপটির আকার ৬৫ শতাংশ পর্যন্ত হ্রাস করা হয়েছে

এই সকল ক্ষেত্রে উন্নত করতে ফেসবুককে নানা ধরনের সমাধানের আশ্রয় নিতে হয়েছে। যার মধ্যে আছে গুগলের নতুন ইমেজ ফরম্যাট ওয়েবপি এর ব্যবহার যা কিনা ইতোমধ্যে গুগল ক্রোম এবং অপেরা ম্যাক্স ব্রাউজারে ব্যবহার করা হয়। এই ইমেজ ফরম্যাট ব্যবহারের ফলে ফেসবুকে ইমেজ ক্ষেত্রে ডাটা বাচবে প্রায় ২৫-৩৫ শতাংশ জেপিজি এর তুলনায় এবং পিএনজি এর তুলনায় ৮০ শতাংশ। আর এর সবকিছুই সম্ভব হবে ছবির মানের উপর কোন প্রকার খারাপ প্রভাব না ফেলে।

এছাড়া বিভিন্ন স্ক্রিন রেজুলেশনের, প্রসেসর এবং র‍্যামের ডিভাইসের জন্যে বিভিন্ন ধরনের এপিকে ফাইল গুগল প্লে স্টোরে সংযোজন করেছে ফেসবুক। ফলে ব্যবহারকারী যেই ধরনের ফোনই ব্যবহার করুক না কেন সে পাবে সর্বশেষ আপডেটেড ফেসবুক সংস্করণ এবং তাঁর সকল সুবিধা। এছাড়া অ্যাপটি কাজ করবে দ্রুত, লোড হতে সময় নিবে কম আর এর আকার হবে ছোট।

এছাড়া ইমেজ লোডিং ব্যর্থতার মান কমাতে তারা নতুন নেটওয়ার্ক কনসেপ্ট তাদের মোবাইল অ্যাপে ব্যবহার করা শুরু করেছে। যা হল OkHttp।

ফেসবুকের ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যানেজার এলেক্স সৌরভ এ বিষয়ে বলেন, “আমাদের উদ্দেশ্য শুধুমাত্র উচ্চমানের স্মার্টফোন এবং উন্নত এলটিই নেটওয়ার্কে ভাল অভিজ্ঞতা দেয়া নয়। আমরা চাই ফেসবুক সকলের জন্যে কাজ করুক- তা যেই অঞ্চল হোক না কেন, নেটওয়ার্ক এর অবস্থা যাই হোক না কেন এবং যেই মোবাইল ফোনই হোক না কেন।”

সৌরভ তাদের এই গবেষণা করতে গিয়ে নানা অভিজ্ঞতার কথাও বর্ণনা করে। যেমন তারা তাদের মাসিক ইন্টারনেট ডাটা ফেসবুক অ্যাপের মাধ্যমে মাত্র ৪০ মিনিটেই খরচ করে ফেলে। এছাড়া আছে মেমরি সমস্যা, লোড হতে অতিরিক্ত সময় লাগা, অ্যাপ ক্র্যাশ করা এবং অন্যান্য সমস্যা যা কিনা স্বল্পোন্নত দেশে চিরচেনা কিন্তু তাদেরকে একটি তিক্ত অভিজ্ঞতা প্রদান করেছে।

ফেসবুকের এই কার্যক্রমকে অনেকেই সাধুবাদ জানিয়েছে। কারন স্বল্পোন্নত অথবা উন্নয়নশীল দেশগুলোতে ফেসবুকের নজর দেয়া উচিত। তবে ফেসবুক যেখানে পশ্চিমা বাজারে প্রায় পূর্ণতা পেয়ে গেছে সেক্ষেত্রে ফেসবুক যে এ সকল দেশে আগে কিংবা পরে নজর দিতে বাধ্য তা বোধগম্য।