পাইকন ঢাকা নিয়ে বিস্তারিত

পাইথন কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ের একটি জনপ্রিয় ভাষা। এটি একটি বহুল ব্যবহৃত হাই-লেভেল প্রোগ্রামিং ভাষা যা বর্তমানকালে সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট বা ওয়েব এপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট ছাড়াও বিভিন্ন গবেষণাধর্মী কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই ভাষার প্রোগ্রামারদের শক্তিশালী কমিউনিটি রয়েছে। প্রতি বছরই এই কমিউনিটির সদস্যরা আয়োজন করেন পাইথন কনফারেন্স যা পাইকন নামে পরিচিত। এই কনফারেন্সগুলো মূলত অনুষ্ঠিত হয় স্বেচ্ছাসেবক পাইথনপ্রেমীদের উদ্যোগে। তাই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই অনুষ্ঠানটি বেশ ঘটা করে আয়োজন করা হয়ে থাকে।

banner

অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও পাইথন ডেভেলপারদের একটি কমিউনিটি রয়েছে যা বাংলাদেশ পাইথন ইউজার গ্রুপ নামে পরিচিত। আর সেই কমিউনিটির সদস্যদের উদ্যোগেই গত ২১শে জুন, ২০১৪ তারিখে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো দেশের প্রথম পাইথন কনফারেন্স, পাইকন ঢাকা ২০১৪। সকাল ৯টায় বনানীর কামাল আতাতুর্ক এভিনিউতে অবস্থিত গ্রীন গ্রানডিউরের ১০ম তলায় এটি অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে যোগ দেন প্রায় ২০০ জন পাইথন প্রোগ্রামার, যাদের বেশিরভাগই সফটওয়্যার নির্মাতা।

2

অনুষ্ঠানটি শুরু হয় সকাল ৯:৩০ মিনিটে। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন তামিম শাহরিয়ার সুবিন। অনুষ্ঠানটিতে ছিল মোট দুটি প্রেজেন্টেশন সেশন। প্রতি সেশনে ৫টি করে ভিন্ন ভিন্ন পাইথন লাইব্রেরী নিয়ে বক্তারা আলোচনা করেন। প্রথম সেশন শুরু হয় বেলা ১০:০০ টায়। এই সেশনের প্রথম বক্তা মাফিনার খান। তিনি বর্তমানে প্যানাসিয়া সিস্টেমস লিমিটেড এ প্রডাক্ট ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি আলোচনা করেন পাইথন প্রোগ্রামিং ভাষার আকর্ষণীয় সব ফিচার নিয়ে।

4

পরবর্তি প্রেজেন্টেশন এর বিষয় ছিল রেস্ট এপিআই (REST API)। ‘টেস্ট ইওর রেস্ট এপিআই’ শীর্ষক এই প্রেজেন্টেশনের বক্তা মুক্ত সফটওয়্যার লিমিটেড এর ব্যাবস্থাপনা পরিচালক তামিম শাহরিয়ার সুবিন। রেস্ট এপিআইয়ের পরে পাইথনের লাইব্রেরী বিউটিফুলসুপ (BeautifulSoup) এর উপরে প্রেজেন্টেশন প্রদান করেন নর্থ সাউথ বিশ্বিবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ইনাম মিজবাহ নূর। তিনি তার বক্তব্যে দেখান কিভাবে বিউটিফুলসুপ ব্যবহার করে HTML পার্সিং করা যায়। ওয়েব ক্রলিং ও স্ক্র্যাপিংয়ের জন্য বিউটিফুলসুপ একটি জনপ্রিয় লাইব্রেরী।

8

‘জ্যাঙ্গো ইন লার্জ স্কেল অটোমেশন’ শিরোনামে পরবর্তি প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন মুক্ত সফটওয়্যার লিমিটেড এর সিটিও মাহফুজুর রহমান মাসুম। জ্যাঙ্গো হচ্ছে পাইথনে তৈরী জনপ্রিয় একটি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ফ্রেমওয়ার্ক যার সাহায্যে অনেক সহজে খুব বড় স্কেলের প্রজেক্ট তৈরী করা যায়।

9

প্রথম সেশনের সর্বশেষ বক্তা ছিলেন গোর্কি সাখাওয়াত সোবহান। তিনি ফাইন্ডার ভেহিকেল ট্ট্যাকিং সার্ভিসের পরিচালক এবং তার প্রেজেন্টেশনের বিষয় ছিলো পাইথনের আরেকটি লাইব্রেরী যার নাম টর্নেডো। টর্নেডো একটি এসিনক্রোনাস বা নন-ব্লকিং ওয়েব সার্ভার ও ওয়েব এপ্লিকেশন ফ্রেমওয়ার্ক যার পুরোটাই পাইথনে লিখা। তার বক্তব্যের মধ্য দিয়ে ১১;৩০ মিনিটে শেষ হয় অনুষ্ঠানের প্রথম সেশন। প্রথম সেশনের পরে ছিল ৩০ মিনিটের একটি নেটওয়ার্কিং ব্রেক। এই নেটওয়ার্কিং ব্রেকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত দর্শকেরা একে অপরের সাথে আলোচনা ও মত বিনিময় করেন। এ সময় নেসক্যাফে’র পক্ষ থেকে সকলকে বিনামূল্যে কফি বিতরন করা হয়।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় সেশন শুরু হয় বেলা ১২ টায়। এই সেশনে ছিলো আরো পাঁচটি প্রেজেন্টেশন। দ্বিতীয় সেশনের শুরুতেই একটি ভিন্নধর্মী বিষয় নিয়ে হাজির হন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রুহশান আহমেদ আবীর। তিনি জেনেটিক্স ডিপার্টমেন্টের একজন শিক্ষার্থী। তিনি ব্যখ্যা করেন বায়‌োইনফরমেটিক্স কি এবং বায়‌োইনফরমেটিক্স এর বিভিন্ন ক্ষেত্র যেমন FASTA ফাইল পার্সিং, ডিএনএ থেকে আরএনএ ট্রান্সক্রিপশন, প্রোটিনের হোমোলজি মডেলিংয়ে কিভাবে পাইথন লাইব্রেরী ব্যবহৃত হয়। তারপরে আরেকটি আকর্ষণীয় বিষয় ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিংয়ের জন্য লেখা পাইথন লাইব্রেরী NLTK নিয়ে আলোচনা করেন ফাসিউল কবির। তিনি এসসেনিক (Escenic) নামক প্রতিষ্ঠানে সফটওয়্যার প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত আছেন। ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং হচ্ছে বিজ্ঞানের এমন একটি শাখা যেখানে কম্পিউটার বিজ্ঞান, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও ভাষতত্বের জ্ঞান ব্যবহার করে কম্পিউটার প্রোগ্রামের মাধ্যমে কথ্য ও লিখিত ভাষা পার্সিং ও তার অর্থ অনুধাবন এবং অর্থবোধক বাক্য গঠন সংক্রান্ত গবেষণা করা হয়। সহজ করে বলতে গেলে মানুষ এবং যন্ত্রের মধ্যে মনের ভাব আদান প্রদানের জন্য যে শাখায় গবেষণা করা হয় তাই হচ্ছে ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং। আর এই কাজের জন্য পাইথনে রয়েছে চমৎকার একটি লাইব্রেরী যার নাম ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ টুলকিট বা NLTK।

10

ফাসিউল কবিরের চমৎকার প্রেজেন্টেশনের পরে কম্পিউটার বিজ্ঞানের খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি শাখা ‘মেশিন লার্নিং’ নিয়ে আলোচনা করেন নিউজক্রেডে কর্মরত রাসেল মাহমুদ। মেশিন লার্নিং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার একটি প্রশাখা যেখানে প্রদত্ত উপাত্ত বিশ্লেষণ করে পূর্বাভাষ দেওয়া বা সিদ্ধান্ত গ্রহণ সংক্রান্ত গবেষণা করা হয়। বর্তমানে চিকিৎসা ক্ষেত্র, আবহাওয়ার, বিপণনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে মেশিন লার্নিং ব্যপকভাবে ব্যবহৃত হয়। রাসেল মাহমুদ আলোচনা করেন কিভাবে পাইথন এর বিভিন্ন লাইব্রেরী ব্যবহার করে মেশিন লার্নিংয়ের বিভিন্ন এলগরিদম বাস্তবায়ন করা যায়।

12

পরবর্তি প্রেজেন্টেশনের বিষয় ছিল পাইথনের Ansible লাইব্রেরী। আইটি ইনফ্রাস্ট্রাকচার অটোমেশন ও ম্যানেজমেন্ট, মাল্টিপল নোড সফটওয়্যার ডেপ্লয়মেন্ট, কনফিগারেন ম্যানেজমেন্টের জন্য তৈরী আনসিবল একটি ওপেন সোর্স পাইথন সফটওয়্যার। আনসিবল নিয়ে আলোচনা করেন নিউজক্রেডে কর্মরত প্রকৌশলী শাইখুল ইসলাম চৌধুরী ও প্রকৌশলী ফাইয়াজ আহমেদ।

সর্বশেষ প্রেজেন্টেশন টপিক নিয়ে হাজির হন নিউজক্রেডের রুবাইয়াত ইসলাম ও শিপলু মোকাদ্দিম। তাদের আলোচনার বিষয় ছিল ‘ডিস্ট্রিবিউটেড টাস্ক ম্যানেজমেন্ট উইথ সেলেরী’। সেলেরী ডিস্ট্রিবিউটেড মেসেজ পাসিং এর উপর ভিত্তি করে পাইথনে তৈরী একটি এসিনক্রোনাস টাস্ক কিউ (রিয়াল টাইম এবং সিডিউলিং)।এটি একটি শক্তিশালী ওপেন সোর্স সফটওয়্যার যা অনেক বেশী ডাটা নিয়ে কাজ করতে সক্ষম। যে সকল সিস্টেমে প্রতিদিন লক্ষাধিক টাস্ক/জব নিয়ে কাজ করতে হয় সেখানে সাধারনত সেলেরী ব্যবহৃত হয়। এই প্রেজেন্টেশনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় পাইকনের দ্বিতীয় সেশন।

11

5

এছাড়াও অনুষ্ঠানে পাইথন শিক্ষার্থীদের পাইথন শিখতে উৎসাহিত করে বক্তব্য প্রদান করেন মুনির হাসান। অনুষ্ঠানের শেষে ছিল একটি সাধারন প্রশ্নোত্তর পর্ব। উপস্থিত দর্শকরা বিভিন্ন প্রশ্ন এবং উত্তর প্রদান করেন। অনুষ্ঠান শেষ হয় বেলা দুইটায়। পুরো অনুষ্ঠানটির ভিডিওতে ধারন করে বিডিওএসএন। শীঘ্রই ভিডিওগুলো ইউটিউবে আপলোড করা হবে বলে জানিয়েছেন অনুষ্ঠানের আয়োজকদের একজন, দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুলের সিইও তাহমিদ রাফি।

1314

অনুষ্ঠানটি আয়োজনে সহায়তা করেছে দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুল ও বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক। দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুল একটি ইন্টারনেট ভিত্তিক শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান যারা বিভিন্ন কম্পিউটার প্রোগ্রামিং সংক্রান্ত বিভিন্ন অনলাইন কোর্সের আয়োজন করে থাকে। আর বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক হচ্ছে একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান যারা দেশের বিভিন্ন স্থানে ওপেন সোর্স সফটওয়্যার ব্যবহার জনপ্রিয় করতে কাজ করে। সাথে ছিলো বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরাম।

banner-logo

অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী সকলকে স্পনসরদের পক্ষ থেকে টি-শার্ট, গিফট প্যাক ও দুপুরের খাবার সরবরাহ করা হয়। পাইকন ঢাকা ২০১৪-এর স্পন্সর ছিলো নিউজক্রেড, ওয়াইডস্পেস, বিডিজবস, মুক্তসফট, ফাইন্ডার এলবিএস, অনলাইন কেনাকাটা, ট্রান্সেনডিও ও নেসক্যাফে। অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করে আয়োজকরা বলেন, ‘বাংলাদেশে এই প্রথমবারের মত আমরা পাইথন ডেভেলপারদের জন্য আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃত পাইকন ঢাকা ২০১৪ করেছি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলের উৎসাহ ও উদ্দীপনা দেখে আমরা অভিভূত’। তারা ভবিষ্যতে পাইথন প্রোগ্রামারদের আরো বড় সম্মেলন আয়োজন করার ইচ্ছা ব্যাক্ত করেন। তারা আরো জানান, dhaka.pycon.org ইউআরএল এ ইভেন্টের বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে।

6

পাইকন ঢাকা ২০১৪

বর্তমান বিশ্বে জনপ্রিয় প্রোগ্রামিং ভাষাগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে পাইথন (Python)। এটি একটি ওপেন সোর্স প্রোগ্রামিং ভাষা যেটি তৈরি ও রক্ষণাবেক্ষণের কাজটি করে পাইথন সফটওয়্যার ফাউন্ডেশন।

PyCon Dhaka 2014
PyCon Dhaka 2014

সারা পৃথিবীতে পাইথন প্রোগ্রামারদের যেই সম্মেলনগুলো অনুষ্ঠিত হয়, সেটির নাম হচ্ছে পাইকন (পাইথন কনফারেন্স)। সারা বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে “পাইকন ঢাকা ২০১৪” নামে বাংলাদেশে সেটি প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এই জুন মাসের ২১ তারিখ। ইতিমধ্যে পাইথন ফাউন্ডেশন থেকে অনুমতিও পাওয়া গেছে। তারা তাদের ওয়েবসাইটে ঢাকার এই অনুষ্ঠানের কথা উল্লেখ করেছে।

তিন ঘণ্টাব্যাপী এই অনুষ্ঠানে পাইথন-এর বিভিন্ন বিষয়ের উপর আলোচনা ও প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও পাইথন প্রোগ্রামারদের নিজেদের মধ্যে পরিচিতিরও সুযোগ থাকছে এখানে। ইতিমধ্যে রেজিস্ট্রেশনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ১৭০ জন পাইথন প্রোগ্রামার পাইকন ঢাকা-তে রেজিস্ট্রেশন করেছেন বলে জানা গেছে।

সম্পূর্ণ ইভেন্টটি ভিডিও করা হবে যেন পরববর্তি সময়ে ইউটিউব থেকে আলোচনাগুলো দেখার সুযোগ থাকে।

অনুষ্ঠানের আয়োজক বাংলাদেশ পাইথন ইউজার গ্রুপ, বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক ও দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুল। পার্টনার হিসেবে আছে বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরাম। পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে নিউজক্রিড, ওয়াইডস্পেস, মুক্তসফট, বিডিজবস, ট্রান্সেনডিও, অনলাইন-কেনাকাটা, ফাইন্ডার এলবিএস এবং নেসক্যাফে।

পাইকন ঢাকা-এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট : http://dhaka.pycon.org/