Live Before You Die – স্টিভ জবস্‌

২০০৫ সালের ১২ জুন। অ্যাপল ইনকর্পোরেটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবস্‌ স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে দেন তাঁর বিখ্যাত বক্তৃতা “How To Live Before you Die”। তাঁর এই বক্তৃতায় তিনি বলেন তাঁর জীবনের তিনটি গল্পের কথা। স্টিভ জবসের জবানিতেই আমরা আজকে এই লেখায় জানবো তাঁর সেই তিনটি গল্প।

পৃথিবীর অন্যতম সুন্দর একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে তোমাদের সামনে আজ আসতে পেরে আমি আনন্দিত এবং সম্মানিত। আমি কলেজের গন্ডি পেরুতে পারিনি। সত্যি বলতে, আজকেই প্রথম আমি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েশনের সবচেয়ে কাছে আসতে পেরেছি। আজকে আমি তোমাদের আমার জীবনের ছোট্ট তিনটি গল্প বলবো।

প্রথম গল্পটির নাম আমি দিবো এক সূতোয় গাঁথা।

আমি রিড কলেজ থেকে প্রথম ৬ মাসের মাথায় ড্রপ আউট হই। কলেজ ড্রপ করার পরেও সেখানে আমি ১৮ মাসের মত ছিলাম। কিন্তু কেন আমি কলেজ থেকে ড্রপ আউট হয়েছিলাম? এই প্রক্রিয়াটি আসলে শুরু হয়েছিল আমার জন্মের আগে থেকে। আমার মা একজন অবিবাহিত কলেজ গ্রাজুয়েট হওয়ার কারণে সে সময় আমাকে দত্তক দেয়ার পরিকল্পনা করেন। আমার মা চেয়েছিলেন একটি সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য আমাকে কোন শিক্ষিত পরিবারের কাছে দত্তক দিতে। সেজন্য তিনি পছন্দ করেছিলেন একজন নিঃসন্তান উকিল দম্পতিকে। কিন্তু সেই উকিল দম্পতি আসলে একটি মেয়ে সন্তানের বাবা-মা হতে চেয়েছিলেন। তাই আমার জন্মের পর তারা আর আমাকে নিতে চাননি। আমাকে নেয়ার জন্য অপেক্ষমান তালিকায় আরো এক দম্পতি ছিলেন। তাঁরা মধ্যরাতে একদিন একটা ফোনকল পান। আমার বায়োলজিক্যাল বাবা মা তাঁদের জিজ্ঞেস করলেন, “অপ্রত্যাশিতভাবে আমাদের একটি ছেলে হয়েছে। তোমরা কী তাকে দত্তক নিতে আগ্রহী?” আমার সেই বাবা-মা সানন্দে আমাকে তাঁদের পুত্র হিসেবে গ্রহণ করে নিলেন। যদিও আমার গর্ভধারিণী মা পরে যখন জানতে পেরেছিলেন আমাকে দত্তক নেয়া বাবা-মার দুজনের একজনও গ্রাজুয়েট নন। এমনকি তাঁরা স্কুল পাশও ছিলেন না, তখন তিনি চূড়ান্ত চুক্তিপত্রে সই দিতে অস্বীকার করেছিলেন। কয়েকমাস পরে, যখন আমার দত্তক নেয়া বাবা-মা আমার মার কাছে প্রতিজ্ঞা করেন যে তাঁরা আমাকে অবশ্যই লেখাপড়া শিখাবেন এবং একদিন আমি অবশ্যই কলেজে যাবো।

এর ঠিক ১৭ বছর পরে আমি কলেজে ভর্তি হই। আমি যে কলেজে ভর্তি হয়েছিলাম সেটি ছিলো এই স্ট্যানফোর্ডের মতই ব্যয়বহুল। আমার ছাপোষা চাকুরিজীবি বাবা-মা তাঁদের সারাজীবনের সঞ্চয় ব্যয় করে যাচ্ছিলেন আমার কলেজের পড়াশোনার পিছনে। ছয়মাস পর এসব আমার কাছে একদম নিরর্থক মনে হলো। আমি জীবনে কী করতে চাই সে সম্পর্কিত কোন ধারণা আমার ছিলো না এবং সেই ধারণা পেতে কলেজ আমাকে কতটুকু সাহায্য করতে পারবে সেটিও আমি বুঝতে পারছিলাম না। অর্থহীনভাবে আমি আমার বাবা-মায়ের সঞ্চয়ের টাকা শেষ করে যাচ্ছিলাম। তখন আমি কলেজ ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেই এবং সেটি ছিল সঠিক একটি সিদ্ধান্ত। যদিও সে সময় এটি ছিল বেশ ভয়ঙ্কর একটি সিদ্ধান্ত, কিন্তু আজকে আমার জায়গায় দাঁড়িয়ে আমি পিছনে তাকালে বুঝতে পারি আমার এই কলেজ ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্তটি ছিল আমার জীবনের নেয়া শ্রেষ্ঠ সিদ্ধান্ত। যে মূহুর্ত থেকে আমি কলেজ ড্রপ আউট হই, সে মূহুর্ত থেকে যেসব বিষয় পড়তে আমার ভাল লাগতো না সেগুলোর ক্লাস করা বন্ধ করে দেই এবং যেসব বিষয়ে আমার আগ্রহ ছিলো সেসব বিষয়ের ক্লাস করা শুরু করি।

অবশ্য ব্যাপারটা খুব একটা রোমান্টিক ছিলো না। সেসময় আমার কোন থাকার জায়গা ছিলো না। আমি আমার বন্ধুর ডরমেটরির রুমের মেঝেতে ঘুমাতাম। কোকের খালি বোতল কুড়িয়ে দোকানে জমা দিয়ে ৫ সেন্ট করে জোগাড় করতাম এবং সেটি দিয়ে আমার খাবার খরচ চালাতাম। প্রতি রবিবার ৭ মাইল হেঁটে হরেকৃষ্ণ মন্দিরে যেতাম শুধুমাত্র একবেলা ভালো খাবারের আশায়। এসব আমি খুব পছন্দ করতাম। আমি তখন আমার যেসব কাজ করতে ভালো লাগতো সেটাই করতাম এবং আস্তে আস্তে আমার কাছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভূমিকা গৌণ হয়ে গেল।

ছোট্ট একটা উদাহরণ দেইঃ
রিড কলেজে সেসময় দেশের সবচেয়ে ভালো ক্যালিগ্রাফি কোর্স চালু ছিল। ক্যাম্পাসের সব পোষ্টার, ড্রয়ার, শিরোনামে খুব সুন্দর সুন্দর হাতে তৈরি ক্যালিগ্রাফি শোভা পেত। যেহেতু আমি সেসময় কলেজ ড্রপআউট ছিলাম, রেগুলার কোর্সগুলো করার কোন বাধ্যবাধকতা ছিল না। কিভাবে ক্যালিগ্রাফি করা হয় এই আগ্রহ থেকে আমি ক্যালিগ্রাফির কোর্সগুলো করার সিদ্ধান্ত নেই। আমি Serif এবং San Serif ফন্ট দুইটি শিখি, অক্ষরগুলোর মাঝে স্পেসের ব্যবহার কিভাবে অপূর্ব টাইপফেসের সৃষ্টি করতে পারে সেটা বুঝতে পারি। সেটি ছিল অপূর্ব, ঐতিহাসিক এবং শৈল্পিক একটি বিষয় যা বিজ্ঞান দিয়ে ব্যাখ্যা করা যায় না এবং আমি এতে মুগ্ধতা খুঁজে পাই।

আমি ধরেই নিয়েছিলাম আমার এই শিক্ষাগুলো কখনোই আমার ব্যক্তিগত জীবনে কোন কাজে আসবে না। কিন্তু ১০ বছর পর যখন আমরা প্রথম ম্যাকিনটস কম্পিউটার ডিজাইন করি, তখন সব ফিরে এসেছিলো। আমরা সেগুলোকে ম্যাকে ব্যবহার করি। এটা ছিল সুন্দর টাইপোগ্রাফি সমৃদ্ধ প্রথম কম্পিউটার। আমি যদি তখন কলেজ ড্রপআউট না করতাম তাহলে ম্যাকিনটস কখনো এত বৈচিত্র্যময় টাইপফেস বা যথাযথ স্পেস সম্বলিত টাইপ ফন্ট পেত না। তখন থেকে উইন্ডোজ-ও এটা কপি করে আসছে, অর্থাৎ কোন পারসোনাল কম্পিউটারেই এত সুন্দর টাইপফেস আমরা পেতাম না। আমি যদি সেসময় কলেজ ড্রপ না করতাম, ক্যালিগ্রাফির সেইসব কোর্স গুলো না করতাম , তাহলে হয়ত আজকে এত সুন্দর ফন্ট আমরা কম্পিউটারে পেতাম না। অবশ্যই সামনে দাঁড়িয়ে হাজার হাজার বিন্দুর মধ্যে যোগসূত্র স্থাপন করা আজ থেকে ১০ বছর আগে যখন আমি কলেজে পড়তাম তখন অসম্ভব ছিল। কিন্তু সেই বিন্দুগুলোকে সংযুক্ত করা আজকে এখানে দাঁড়িয়ে আমার জন্য অনেক সহজ।

সামনের দিকে তাকিয়ে কখনোই বিন্দু সংযোগ দেয়া সম্ভব না, কিন্তু পিছন থেকে কাজটা করা অনেক সহজ। তোমাকে বিশ্বাস রাখতে হবে নিজের উপর যে, ভবিষ্যতে অবশ্যই কোন না কোনভাবে বিন্দুগুলো সংযুক্ত করা যাবেই। হতে পারে সেটা তোমার কর্মফল, তোমার ভাগ্য, তোমার পরিশ্রম, তোমার ক্ষমতা। আমার নিজের উপর এই বিশ্বাস কখনোই আমাকে পিছিয়ে পরতে দেয়নি এবং আমার এই সিদ্ধান্তই পাল্টে দিয়েছে আমার পুরো জীবনকে।

আমার দ্বিতীয় গল্পটা হচ্ছে ভালবাসা এবং হারিয়ে ফেলার গল্পঃ

আমি ভাগ্যবান ছিলাম – যা করতে ভালবাসতাম সেটি অল্প বয়সেই করতে পেরেছিলাম। ওজ এবং আমি অ্যাপল শুরু করেছিলাম আমাদের ব্যক্তিগত গ্যারেজে মাত্র ২০ বছর বয়সে। আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছিলাম বলেই, গ্যারেজের দুইজনের কোম্পানি থেকে মাত্র ১০ বছরে অ্যাপল ২ বিলিয়ন ডলারের, ৪০০০ কর্মীর কোম্পানিতে পরিণত হয়েছে। আমরা যখন আমাদের সবচেয়ে সুন্দর আবিষ্কার ম্যাকিনটস তৈরি করলাম তখন আমার বয়স মাত্র ৩০। তখন আমাকে অ্যাপল থেকে ছাটাই করা হয়। প্রশ্ন হতে পারে, যে কোম্পানির শুরু আমি নিজে করেছি সেখান থেকে আমাকে কিভাবে ছাঁটাই করা যায় ? ধীরে ধীরে যখন অ্যাপল বড় হতে থাকলো, তখন আমি খুব মেধাবী একজনকে খুঁজতে থাকি যে কিনা আমার সাথে অ্যাপলকে আরো সমৃদ্ধ করবে। প্রথম একবছর আমাদের কাজ ভালই চলেছিল, কিন্তু যখন আমাদের লক্ষ্য আলাদা হয়ে গেল তখন আমরা ব্যর্থ হলাম। সেসময় অ্যাপলের বোর্ড অফ ডাইরেক্টরস্‌ আমার পক্ষ না নিয়ে তাঁর পক্ষ নিলো এবং ৩০ বছর বয়সে নিজ কোম্পানি থেকে আমাকে ছাঁটাই করা হলো। আমি আমার সারা জীবন যেখানে মনোনিবেশ করেছিলাম, সেটি এক মুহুর্তে চলে গেল; যা ছিল অত্যন্ত বিধ্বংসী।

সামনের কয়েকমাস কী করে আমার কাটবে, আমি বুঝতে পারছিলাম না। আমার মনে হয়েছিল আমি আমার পূর্ববর্তী প্রজন্মের উদ্যোক্তাদের পিছনে ফেলে দিয়েছিলাম, সেটা ঠিক কাজ হয়নি। আমি বব নয়েস এবং ডেভিট পাকার্ডের সঙ্গে দেখা করি এবং তাঁদের কাছে ক্ষমা চাই। যদিও এটা ছিল বড় ধরণের একটা ভুল এবং আমি একসময় সিলিকন ভ্যালি থেকে পালিয়ে যাওয়ার চিন্তাও করেছিলাম। কিন্তু ধীরে ধীরে আমি আমার আমিতে ফিরে এলাম এবং আবার নিজের কাজকে ভালবাসতে শুরু করলাম। আমার প্রস্থানে অ্যাপলে তেমন কোন পরিবর্তন হলো না। যদিও আমাকে বাতিল করা হয়েছিল অ্যাপল থেকে আমি, কিন্তু আমি তখনো আমার কাজকে ভালবাসতাম। তাই আমি আবারো নতুন করে সবকিছু শুরু করার সিদ্ধান্ত নেই।

তখন বুঝতে না পারলেও আমি পরে বুঝেছিলাম যে, অ্যাপল থেকে বিতাড়িত হওয়া আমার জীবনে ঘটা সর্বোত্তম একটি ঘটনা ছিল। সাফল্যের চূড়া থেকে হঠাৎ করেই ছিটকে যাওয়া এবং আবারো নিজেকে একদম তলানিতে আবিষ্কার করেছিলাম আমি; যেখানে নিশ্চিত ছিল না কোন কিছুই। এই ঘটনাটি আমাকে আমার জীবনের সবচেয়ে সৃজনশীল সময়টিতে পৌঁছে দেবার রাস্তাটাকে সহজ করে দিয়েছিলো।

পরবর্তী পাঁচ বছরে আমি NeXT এবং Pixar নামক দুইটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করি এবং অসাধারণ একজন নারীর প্রেমে পরি , যিনি পরবর্তীতে আমার স্ত্রী হন। পিক্সার তখন বিশ্বের প্রথম কম্পিউটার এ্যানিমেটেড ফিচার ফিল্ম Toy Story তৈরি করে এবং এখন পর্যন্ত এটি বিশ্বের সবচেয়ে সফল এ্যানিমেশন স্টুডিও। এই অভূতপূর্ব সাফল্যের কারণে, অ্যাপল তখন NeXT-কে কিনে নেয়। আমি আবার অ্যাপলে ফিরে আসি। টেকনোলজি, যা NeXT এ তৈরি করা হয়েছিলো, এটি বর্তমান অ্যাপল যুগের প্রাণ। এবং লরেন্স ও আমি তখন একটি সুন্দর পরিবার গঠন করেছিলাম।

আমি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি, এসবের কিছুই হতো না যদি না আমাকে অ্যাপল থেকে বের করে দেয়া হতো। তিক্ত ওষুধ খাওয়ার অভিজ্ঞতা কোন রোগীর জন্য সুখকর না হলেও, রোগীর জন্য সেটি আবশ্যক। কখনো কখনো জীবন ইট দিয়ে তোমার মাথায় আঘাত করবে। বিশ্বাস হারানো যাবে না। আমি বিশ্বাস করতাম যে, একটি জিনিসই আমাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে, তা হলো নিজের কাজকে ভালবাসা। কী করতে তুমি ভালবাসো, সেটা তোমাকেই খুঁজে বের করতে হবে। এটা যেমন তোমার কাজের জন্য সত্য, তেমনি সত্য তোমার ভালবাসার মানুষের জন্যও। তোমার কর্ম তোমার জীবনের বিরাট একটি অংশকে পূর্ণ করবে, তাই পরিপূর্ণ সন্তুষ্টির জন্য তুমি যে কাজকে শ্রেষ্ঠ কাজ বলে মনে করো, সেটিকেই বেঁছে নাও। এবং শ্রেষ্ঠ কাজ করার সর্বোত্তম উপায় হলো নিজের বর্তমান কাজকে ভালবাসা। যদি তুমি এখনো সেটি খুঁজে না পাও, খুঁজতে থাকো। কখনো বসে পরো না। একসময় না একসময় তুমি ঠিকই তাকে খুঁজে পাবে। যেকোন সুন্দর সম্পর্কের মত যতদিন যাবে সেটি সুন্দর থেকে সুন্দরতর হতে থাকবে। তাই খুঁজে যাও তোমার তোমার ভালবাসার কাজটিকে, যতক্ষণ না পাও। হাল ছেড়ো না।

আমার শেষ গল্পটি মৃত্যু নিয়ে।
যখন আমার বয়স ১৭, তখন আমি একটি বাণী শুনেছিলাম এমন যে, “তুমি যদি তোমার জীবনের প্রতিদিনকে তোমার জীবনের শেষ দিন মনে করে কাজ করো, তাহলে একদিন তুমি অবশ্যই সফল হবে।” এই কথাটি আমাকে এতটাই মুগ্ধ করেছিলো যে, গত ৩৩ বছর আমি প্রতিদিন সকালে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে প্রশ্ন করি, “যদি আমি জানি যে আজকে আমার জীবনের শেষ দিন, তাহলে কী আমি সেই কাজ করবো যা আমি আজকে করতে চাচ্ছি?” পরপর কয়েকদিন যদি উত্তর পেতাম “না”, তখন আমি মনে করতাম কিছু পরিবর্তন করা আবশ্যক।

আমি খুব তাড়াতাড়ি মারা যাবো, এই কথাটি ছিল আমার জীবনে বড় বড় সিদ্ধান্ত নেয়ার মূল চালিকাশক্তি। কারণ, বলতে গেলে প্রায় সব কিছুই – সব ধরণের চাওয়া-পাওয়া, অহম, ভয়-ভীতি, লজ্জা, ব্যর্থতা সব কিছুই মৃত্যুর কাছে তুচ্ছ; সব কিছুই মূল্যহীন শুধুমাত্র যা সত্যিকার অর্থেই যা দরকার সেটা ছাড়া। যখন তুমি মনে করবে তুমি মরে যাচ্ছো, তখন তোমার কাছে মনে হবে না, তোমার হারাবার কিছু আছে। যখন তুমি নিঃস্ব, তখন নিজের মনের কথা শোনা ছাড়া আর কোন উপায়ই তোমার নেই।

একবছর আগে, আমি ক্যান্সারে আক্রান্ত হই। সকাল ৭ঃ৩০ এ স্ক্যান করে আমার অগ্ন্যাশয়ে একটি টিউমারের অস্তিত্ব শনাক্ত করা হয়। তখন আমি জানতাম অগ্ন্যাশয় কী জিনিস। আমার চিকিৎসক আমাকে বললেন, এই ক্যান্সারটি অনিরাময়যোগ্য ক্যান্সারগুলোর একটি এবং আমার আয়ু বড় জোড় ৩-৬ মাসের মত। আমার ডাক্তার আমাকে বলেছিলেন বাড়ি চলে যেতে এবং মৃত্যুর জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে। প্রস্তুতি বলতে ছিলো নিজের সন্তানদের কয়েক মাসের মধ্যে সবকিছু বলা যা আমি গত ১০ বছরে তাঁদের বলতে পারিনি। এটা ছিলো মূলত নিজের পরিবারকে বুঝানো যে, সময় সন্নিকটে যেন সবকিছু গ্রহণ করা তাঁদের জন্য সহজ হয়। ব্যাপারটা আসলে ছিলো পরিবারকে চিরবিদায় জানানো।

ঐদিন সারাদিনই আমার নানারকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলে। সন্ধ্যায় আমার একটি বায়োপসি করানো হয়। আমার অগ্ন্যাশয়ের টিউমার থেকে কিছু কোষ নিয়ে পরীক্ষা করা হয়। আমি সেসময় অচেতন ছিলাম। জ্ঞান ফেরার পরে আমার স্ত্রীর কাছ থেকে আমি জানতে পারি যে, যখন আমার টিউমারের কোষগুলো মাইক্রোস্কোপের নিচে ধরা হয়, তখন হঠাৎ করে ডাক্তার কাঁদতে শুরু করে। কারণ, ক্যান্সারটি ততদিনে অপারেশনের মাধ্যমে নিরাময়যোগ্য একটি বিরল ক্যান্সারে পরিণত হয়েছে। আমার অপারেশন করার ফলে এখন আমি সুস্থ।

সেসময় খুব কাছ থেকে আমি মৃত্যুকে প্রত্যক্ষ করেছিলাম। মৃত্যুর কাছাকাছি যেয়ে আমি বুঝতে পেরেছি এটা নিখাদ এবং একটি আধ্যত্নিক ভাবনা। কোন মানুষই মরতে চায় না। এমনকি যারা স্বর্গে যেতে চায়, তারাও মৃত্যুকে হাসিমুখে গ্রহণ করে স্বর্গে যেতে চায় না। তারপরেও, এটি এমন একটি ঠিকানা, যেখানে আমরা সবাই একদিন পৌঁছে যাবো। কেউ সেখান থেকে পালাতে পারবে না। মৃত্যু জীবনের সুন্দরতম আবিষ্কারগুলোর একটি। পুরোনোকে মুছে ফেলে এটা নতুনদের জন্য পথকে পরিষ্কার করে। বর্তমানে নতুন হচ্ছো তোমরা, কিন্তু ধীরে ধীরে তোমরা বুড়ো এবং পুরোনো হতে থাকবে এবং একসময় মুছে যাবে। দার্শনিক মন্তব্য দেয়ার জন্য দুঃখিত, কিন্তু এটাই নিয়তি।

তোমার সময় সীমিত, সেসময়কে অন্যের জীবনের মত যাপন করে নষ্ট করো না। মানুষের চিন্তার ফলাফলের ফাঁদে নিজেকে আটকে রেখো না। অন্যের মতামতের চিৎকারে নিজের ভেতরকার আওয়াজকে থমকে যেতে দিও না। এবং অবশ্যই সাহস রাখো নিজের মনের কথা এবং অনুমানশক্তির উপর। কারণ, তারা সত্যিকার অর্থেই জানে তুমি কী হতে চাও। বাকিসব কিছুই সেখানে গৌণ।

আমার যুবক বয়সে একটি বই বেশ সাড়া ফেলেছিল। বইটির নাম দ্যা হোল আর্থ ক্যাটালগ (The Whole Earth Catalog), যাকে আমরা সেসময়ের তরুণ সমাজ বাইবেল জ্ঞান করতাম। স্টুয়ার্ড ব্রান্ড তাঁর কাব্যিক ছোয়ায় এটিকে মানুষের কাছে নিয়ে এসেছিল। এটা ১৯৬০ সালের ঘটনা, যখন পারসোনাল কম্পিউটার এবং ডেস্কটপ আবিষ্কার হয়নি। তাই এই বইটিতে ছিল টাইপরাইটার, কাঁচি, পোলারয়েড ক্যামেরার ছোঁয়া। এটাকে বলা যায় “গ্রন্থাকৃতির গুগল”।

স্টুয়ার্ট এবং তাঁর দল বইটিতে নানা ধরণের বিষয়ের অবতারণা করেছিলেন। বইটির শেষে তারা বলে গেছেন আসল কথা। এটা ৭০’ দশকের মাঝামাঝি সময়, তখন আমি তোমাদের বয়সী। তাঁদের বইয়ের শেষ পাতায় সকালের রাস্তার একটি সুন্দর আলোকচিত্র ছিল। তোমাদের মধ্যে যারা অভিযানপ্রিয় তারা এমন ছবি প্রায়ই দেখে থাকো। ছবির নিচে লেখা ছিল, “Stay Hungry. Stay Foolish.” এটা ছিল তাঁদের বিদায় সম্ভাষণ। Stay Hungry. Stay Foolish, যা আমি নিজে সবসময় নিজের জন্য কামনা করি। আজকে এখানে সবাই তোমরা প্রাজুয়েট হয়েছো। আজ আমি তোমাদের জন্যও বলছি, Stay Hungry. Stay Foolish

সবাইকে ধন্যবাদ।

[ Stay Hungry: কখনো তৃপ্ত হয়ো না এই ভেবে যে , তুমি সব জেনে গেছো। নিজেকে এগিয়ে নিয়ে যাও।
Stay Foolish: কাজ করে যাও এবং চেষ্টা করতে থাকো সেসব কাজ করার যেসব ব্যাপারে মানুষ বলে “কখনো এটা হবে না” ]

লেখকঃ তামান্না নিশাত রিনি


স্টিভ জবস্‌ (শেষ পর্ব )

(১ম পর্বে পড়তে হলে এখানে ক্লিক করুন)

আধ্যত্মিক জ্ঞান অর্জন শেষে আবারও সিলিকন ভ্যালির ইলেকট্রনিক বর্জ্যের ভাগাড়ে ফিরে এলেন জবস। বন্ধু উজের সঙ্গে কম্পিউটার বোর্ড বানানোর কাজ শুরু করলেন। আশপাশের অনেকে সার্কিট বোর্ডটি বেশ পছন্দ করল। এরপর আর্কেড ভিডিও গেম ব্রেকআউটের জন্য সার্কিট বোর্ড তৈরির কাছে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। প্রত্যেক চিপের জন্য $১০০ দেওয়ার প্রস্তাব দেয় অ্যাটারি। সার্কিট বোর্ড ডিজাইনে জবসের একটু বিশেষ জ্ঞান ছিল এবং তিনি ওজনিয়াকের সাথে সমানভাবে ফি ভাগ করে নেওয়ার চুক্তি করেন কিন্তু ওজনিয়াকের সাথে একটা শর্ত ছিল। আর তা হলো চিপের সংখ্যা কমাতে হবে। অ্যাটারি ইঞ্জিনিয়ারদের বিস্মিত করে ওজনিয়াক চিপের সংখ্যা ৫০-এ নামিয়ে আনেন। ডিজাইন এতটাই দূর্ভেদ্য ছিল যে অ্যাসেম্বলি লাইন নকল করা প্রায় অসম্ভব ছিল। অ্যাটারি প্রস্তাবিত $৫,০০০ এর পরিবর্তে তাদেরকে মাত্র $৭০০ দিয়েছিল। এতে ওজনিয়াকের অংশ দাড়ায় $৩৫০। অবশ্য, ওজনিয়াক ১০ বছর পর আসল বোনাসের পরিমাণ জানতে পারেন। তবে তিনি বলেন যে যদি জবস তাকে এ সম্পর্কে জানাত এবং তার টাকাগুলোর প্রযোজনীয়তা সম্পর্কে বলত তাহলে তিনি তা তাকে দিয়ে দিতেন।

টেলিফোন নেটওয়ার্ককে নিপূনভাবে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় টোন উত্‍পন্ন করতে,  দুই বন্ধু মিলে প্রথমে যে জিনিসটি তৈরি করেন সেটা হলো—একটা ব্লু বক্স। এই ব্লু বক্সটির সাহায্যে টেলিফোনকে বোকা বানিয়ে বিনামূল্য পৃথিবীর যে কোনো স্থানে কথা বলা যেত। এটা যদিও আইনসিদ্ধ ছিল না, কিন্তু মানুষ এটা পছন্দ করেছিল। এটা করে তারা ৬ হাজার ডলারের মতো যোগাড় করেছিল।

blue-box
স্টিভ জবস্‌ এবং ওজনিয়াকের প্রথম আবিষ্কার ব্লু বক্স

১৯৯৪ সালে একটি সাক্ষাত্‍কারে, জবস বলেন যে ব্লু বক্স কিভাবে তৈরি করতে হয় তা বুঝে উঠতে তাদের ছয় মাস সময় লেগেছিল। তিনি বলেন যে যদি ব্লু বক্সগুলো তৈরি না হত, তাহলে হয়ত অ্যাপলও থাকত না।

১৯৭৬ সালে, জবস এবং ওজনিয়াক নিজেদের ব্যবসা শুরু করেন। তারা তাদের কোম্পানির নাম দেন “অ্যাপল কম্পিউটার কোম্পানি”। প্রথম দিকে সার্কিট বোর্ড বিক্রয়ের মাধ্যমে তারা এই কোম্পানি চালু করেন।

অ্যাপল প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে স্টিভ জবস ও স্টিভ ওজনিয়াক বেশি পরিচিত হলেও শুরুর দিকে কোম্পানিটির তিনজন প্রতিষ্ঠাতা ছিল। বাকি একজন হচ্ছেন রোনাল্ড ওয়েন, যিনি অ্যাপলের প্রথম লোগোটি এঁকেছিলেন। কিন্তু ঋণের দায়ে ওয়েন তার ১০% শেয়ার মাত্র ৮০০ ডলারে বিক্রি করে দেন, যার বর্তমান মূল্য ৩৫ বিলিয়ন ডলারের বেশি!

logo1
রোনাল্ড ওয়েনের ডিজাইন করা প্রথম অ্যাপল লোগো

১৯৭৬ সালে ওজনিয়াক একক প্রচেষ্টায় অ্যাপল-১ কম্পিউটার উদ্ভাবন করেন। ওজনিয়াক কম্পিউটারটি জবসকে দেখালে, জবস তা বিক্রয় করার পরামর্শ দেন। তখন তারা এটিকে বিক্রয়ের জন্য রোনাল্ড ওয়েনকে সাথে নিয়ে জবসের গ্যারেজে অ্যাপল কম্পিউটার প্রতিষ্ঠা করেন। এ বছরই ৬৬৬.৬৬ ডলারে অ্যাপল ১ কম্পিউটার বিক্রি শুরু হয়। এই দামের পেছনে একটা কারণ আছে। ধারণা করা হয়, স্টিভ এবং ওজনিয়াক সংখ্যা পুনরাবৃত্তি করতে পছন্দ করতেন, কেননা ৫০০ বা ৬৬৭ থেকে ৬৬৬.৬৬ টাইপ করা সহজ! ওয়েন অল্প কিছু দিন ছিলেন। অতঃপর তিনি জবস এবং ওজনিয়াককে ছেড়ে চলে যান। তিনি ছিলেন অ্যাপলের প্রাথমিক সহ-প্রতিষ্ঠাতা।

Apple1
অ্যাপল ১ কম্পিউটার

ওয়েন চলে যাওয়ার পরও জবসের উৎসাহে উজ কম্পিউটারের যন্ত্রাংশ তৈরি ও অ্যাসম্বলিংয়ে মন দিলেন। ১৯৭৭ সালের কিছুদিনের মধ্যেই অ্যাপল-১ এর চেয়ে উন্নতমানের একটা কম্পিউটার তৈরি করে ফেলেন। নাম দেওয়া হয় ‘অ্যাপল-২’। দুই বন্ধু আঁচ করতে পারলেন, অ্যাপল-২ বাজারের যেকোনো কম্পিউটারের চেয়ে গুণে-মানে সেরা হবে। হলোও তা-ই। কিন্তু ব্যবসা করতে হলে মূলধন লাগবে। আর তাই তারা ইন্টেলের তত্‍কালীন সাবেক পণ্য বিপণন ব্যবস্থাপক মাইক মার্ককুলা এর কাছে যান অর্থ প্রাপ্তির আশায়। মাইক মার্ককুলা তাদের কর্মকাণ্ডের গুরুত্ব  বুঝতে দেরি করেননি। এই দুই হীরার টুকরা বন্ধুকে ঠিকই চিনলেন প্রসেসর নির্মাতা ইন্টেল করপোরেশনের সাবেক এই কর্মকর্তা। প্রতিভাবান বন্ধুদ্বয়কে আড়াই লাখ ডলার পুঁজি দিলেন। এর ফলে ১৯৭৭ সালের ৫ জুন প্লাস্টিক কেসে রঙিন মনিটর সমৃদ্ধ অ্যাপল টু বাজারে আসে। দেখতে দেখতে দুই বছরের মাথায় ব্যবসা দাঁড়িয়ে গেল। বিশ্বজুড়ে তখন পার্সোনাল কম্পিউটার কেনার হিড়িক। সেই জোয়ারে ১ নম্বর কাতারে সবার পছন্দের তালিকায় উঠে এল অ্যাপল-২। ব্যবসা রমরমা হয়ে উঠল। ১৯৮০ সালের ডিসেম্বরের দিকে স্টিভ জবসের সম্পদের পরিমাণ ২০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে গেল। তখন তাঁর বয়স মাত্র ২৫।

অ্যাপল ২ কম্পিউটার

১৯৭৮ সালে, অ্যাপল মাইক স্কটকে প্রধান নিবার্হী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেয়। ১৯৮৩ সালে, জবস পেপসি-কোলার জন স্কালীকে অ্যাপলের প্রধান নিবাহী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহনের জন্য প্রলুব্ধ করেন। জবস তাকে জিজ্ঞাসা করেন, “তুমি কি তোমার জীবনের বাকিটা সময় চিনির পানীয় বিক্রয় করে কাটাতে চাও, নাকি আমার সাথে এসে বিশ্বকে বদলে দিতে চাও?”

ইন্টেলের কর্মকর্তারা জবস্‌-কে বলেন যে- “অ্যাপল কোথাও যাবে না। তুমি একটা মস্ত বড় ভুল করছো”। কম্পিউটার জগতের অন্যান্যদের সঙ্গে জবসের পার্থক্য তার শেষ মূহুর্ত পর্যন্ত নিশ্চুপ থাকা। কাজের মাধ্যমেই অন্যের জবাব দেয়া। নিশ্চুপ জবসের মাথায় সব সময় নতুন নতুন প্রযুক্তি খেলা করত। আর তাই জবস পিএআরসি, জেরক্সের রিসার্চ সেন্টারে এমন কিছু বানানোর চেষ্টা করছিলো যা পরে মাউস নামে পরিচিত হয়। স্টিভের মাথায় আর্থিক লাভের কথা ছিল না। তার মাথায় ছিল “ সবার জন্য কম্পিউটার”।

জবস একজন প্ররোচনামূলক এবং সহজাত দক্ষতা সম্পন্ন পরিচালক হওয়া সত্ত্বেও, সে সময়ের তার কিছু কর্মচারী তাকে মেজাজী হিসেবে দেখতেন। বাজারে সুবিধা করতে না পারায় জবসের সাথে স্কালীর কাজের সম্পর্কে অবনতি ঘটে, যা তাদের মধ্যে ক্ষমতার দ্বন্দ্বে পরিণত হয়। জবস মধ্যরাতেও সভা চালিয়ে যান, লম্বা ফ্যাক্স পাঠান এবং সকাল ৭টায় নতুন সভা আহবান করেন।

স্কালী জানতে পারেন যে জবস পরিচালনা পরিষদের সদস্যদের দ্বারা একটি অভ্যত্থান সৃষ্টি করার প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন এবং মে ২৪, ১৯৮৪ তারিখে, সমস্যা সমাধানের জন্য তিনি পরিচালনা পরিষধদের সভা আহবান করেন। অ্যাপলের পরিচালনা পরিষদ স্কালীর পক্ষ নেয় এবং জবসকে ম্যাকিন্টশ বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে ফেলা দেওয়া হয়। জবস ধীরে ধীরে কাজে আসা বন্ধ করে দেন। মহাকাশচারী হিসেবে স্পেস শাটলে ওড়ার ব্যর্থ প্রয়াস এবং সোভিয়েত ইউনিয়নে একটি নতুন কম্পিউটার কোম্পানি চালু করার কথা বিবেচনা করে, তিনি অ্যাপল থেকে পদত্যাগ করেন।

২০০৫ সালে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানের বক্তৃতায় তিনি বলেন যে অ্যাপল থেকে বহিষ্কারের ঐ ঘটনাটি ছিল তার জীবনের শ্রেষ্ঠ ঘটনা। তিনি বলেন, “সফল হওয়ার ভার, নতুন করে শুরু করার আলোয় কেটে গিয়েছিল, সবকিছু সম্পর্কে কম নিশ্চিত ছিলাম। এটি আমাকে আমার জীবনের সবচেয়ে সৃজনশীল অংশে প্রবেশ করতে সহায়তা করে।” তিনি আরও বলেন, “আমি মোটামুটি নিশ্চিত এর কিছুই ঘটত না যদি না আমাকে অ্যাপল থেকে বহিষ্কার করা হত। এটি ছিল ভয়াবহ ওষুধের মত, তবে আমি মনে করি রোগীর এটি প্রয়োজন ছিল।”

অ্যাপল থেকে পদত্যাগের পর ১৯৮৫ সালে ৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে জবস প্রতিষ্ঠা করেন নেক্সট ইনকর্পোরেটেড (NeXt Inc.)।এক বছর পর তার অর্থ সংকট দেখা দেয়, তার কোন পন্যও ছিলনা, ফলে তাকে বিনিয়োগকারীদের সরণাপন্ন হতে হয়। তিনি বিলিয়নিয়ার রস পেরটের মনোযোগ আকর্ষণ করেন, যিনি কোম্পানিতে প্রচুর পরিমাণে বিনিয়োগ করেন। নেক্সট ওয়ার্কস্টেশন অবমুক্ত হয় ১৯৯০ সালে, এর মূল্য ছিল ৯,৯৯৯ মার্কিন ডলার।  শিক্ষাখাতের জন্য ডিজাইন করা হলেও, অধিক মূল্যের কারণে এটি বাজারে সুবিধা করতে পারেনি।

১৯৯৬ সালে, অ্যাপল নেক্সটকে ৪২৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিময়ে ক্রয়ের ঘোষণা দেয়। ১৯৯৬ সালের শেষ দিকে লেনদেন চূড়ান্ত হয়। এর মাধ্যমে অ্যাপলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা জবসের কোম্পানিটিতে প্রত্যাগমন ঘটে। ১৯৯৭ সালের জুলাইয়ে, অ্যাপলের তত্‍কালীন প্রধান নির্বাহী গিল আমেলিওকে উচ্ছেদ করা হলে জবস কার্যত প্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেন। সেপ্টেম্বরে তিনি অন্তবর্তীকালীন প্রধান নির্বাহীর পদ পেয়ে যান।১৯৯৮ সালের মার্চে, অ্যাপলকে পুনরায় লাভজনক কোম্পানিতে পরিণত করা প্রচেষ্টা হিসেবে জবস নিউটন, সাইবারডগ এবং ওপেনডকের মত কিছু প্রকল্প বন্ধ করে দেন। জবস ম্যাকিন্টস ক্লোনের লাইসেন্সকরণ প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন আনেন, তিনি এটিকে প্রস্তুতকারকদের জন্য অনেক ব্যয়বহুল করে দেন।

জবস অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী হিসেবে বছরে মাত্র ১ মার্কিন ডলার বেতন গ্রহন করতেন। জবস ঠাট্টস্বরূপ বলেন যে অ্যাপল থেকে তিনি বছরে যে ১ মার্কিন ডলার পান, তার ৫০ সেন্ট পান বার্ষিক সম্মেলনে উপস্থিত হওয়ার জন্য এবং বাঁকি ৫০ সেন্ট পান নিজের কাজের জন্য।

স্টিভ জবসের গাড়িতে কখনোই নম্বর থাকত না। কারণ, ক্যালিফোর্নিয়ার ট্র্যাফিক আইন অনুযায়ী সেখানে একটি নতুন গাড়ি নম্বর প্লেট ছাড়া ছয় মাস চালানো যায়। আর জবস কখনোই একটি গাড়ি ছয় মাসের বেশি সময় ধরে ব্যবহার করেননি!

স্টিভ জবস্‌ ১৯৯১ সালে লরেন পাওয়েলকে বিয়ে করেন। লরেন এবং তাঁর রয়েছে এক ছেলে ও দুই মেয়ে। এছাড়াও এক বান্ধবীর ঘরে আছে জবসের তরুণ বয়সের আরেকটি মেয়ে।

নেক্সটে কাজ করার সময় জবস্‌ বলেছিলেন, “আমি যখন বেঁচে থাকব না, তখন আমার সৃজনশীল কাজের জন্য সবাই বাহবা দেবে। কিন্তু কেউ জানবে না যে আমিও একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালাতে পারি।”

২০০৩ সালে জটিল প্যানক্রিয়াটিক ক্যানসারের চিকিৎসা করান অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী স্টিভ জবস এবং ওই সময় তাঁর অস্ত্রোপচারও করা হয়। কিন্তু তিন বছরের মধ্যেই আবার টিউমার হয় এবং ২০০৯ সালে তাঁর যকৃত প্রতিস্থাপন করতে হয়।

প্রযুক্তি বিশ্বের অন্যতম দিকপাল ও এক সময়কার অ্যাপল সিইও স্টিভ জবস্‌ অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সারে ভুগে ২০১১ সালের ৫ অক্টোবর মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুর আগে শেষ শব্দটি ছিল “ওহ ওয়াও”। সাংবাদিক ব্রেন্ট স্লেনডার ও রিক টেটজেলি ২০১৫ সালের ২৪ মার্চ প্রকাশ করেন স্টিভ জবস্‌ এর বায়োগ্রাফি “বিকামিং স্টিভ জবস্‌”।

 লেখক : তামান্না নিশাত রিনি

স্টিভ জবস্‌ (পর্ব ১)

তথ্য-প্রযুক্তির আজকের এই যুগে অ্যাপল কম্পিউটার, আইফোন, আইপ্যাড, অ্যাইপড  এই শব্দগুলোর সাথে আমরা সবাই পরিচিত। এইসব যুগান্তকারী জিনিসের উদ্ভাবক কলেজের গণ্ডি পেরুতে না পারা একজন। নাম তাঁর স্টিভেন পল জবস্‌, যিনি স্টিভ জবস্‌ নামে সুপরিচিত। তাঁর রয়েছে একক এবং যৌথভাবে ৩৪২টি পণ্যের পেটেন্ট! কিংবদন্তী এই উদ্যোক্তা এবং প্রযুক্তি উদ্ভাবককে পারসোনাল কম্পিউটার বিপ্লবের পথিকৃৎ বলা হয়।

স্টিভেন পল জবস ১৯৫৫ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সান ফ্রান্সিসকোতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর মায়ের নাম জোন স্কিবল ও পিতা সিরিয়ান ইমিগ্র্যান্ট আবদুল ফাত্তাহ জান্দালি। অবিবাহিত এবং স্টুডেন্ট বাবা-মার সন্তান স্টিভ জবস্‌-কে জন্মের পরপরই দত্তক দিয়ে দেয়া হয় পল ও ক্লারা জবস দম্পতির কাছে। পরবর্তিতে দত্তক পিতা-মাতার দেয়া “স্টিভ জবস্‌” নাম নিয়ে তিনি হন জগৎবিখ্যাত।

cr
স্টিভ জবসের ছোটবেলার ছবি

তিনি বেড়ে উঠেছেন এমন এক জায়গায়, যেটি পরবর্তী সময়ে বিশ্ব তথ্যপ্রযুক্তির তীর্থস্থান হয়ে ওঠে। জায়গাটি সিলিকন ভ্যালি। একটা সময় ক্যালিফোর্নিয়ার ওই স্থানটি ইলেকট্রনিক বর্জ্যের ভাগাড় ছিল। অনেক প্রকৌশলী তাঁদের গ্যারেজ গড়ে তুলেছিলেন সেখানে। হয়ত তাঁদের দেখেই স্টিভ জবস্‌ স্বপ্ন দেখেছিলেন নিজেও তাঁদের মত একজন হয়ে উঠার।

১৯৬৯ সালের দিকে স্টিফেন ওজনিয়াক নামের এক তরুণের সঙ্গে পরিচয় হয় জবসের। ইলেকট্রনিকসের প্রতি দুজনের গভীর আগ্রহ থাকায় বয়সে তাঁর চেয়ে পাঁচ বছরের বড় ওজের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে জবসের।

wozniak-and-jobs
ওজনিয়াক এবং স্টিভ জবস্‌

স্টিভ জবস কুপারটিনো জুনিয়র হাই স্কুল এবং হোমস্টিড হাই স্কুলে পড়ার পর ১৯৭২ থ্রিস্টাব্দে তিনি হাই স্কুল শেষ করেন এবং রীড কলেজ়ে ভর্তি হন। কিন্তু রীড লিবারেল আর্টসের ওপর বেশ ব্যয়বহুল একটি কলেজ ছিল। অসচ্ছ্বল পল-ক্লারা দম্পতির পক্ষে সেই ব্যয়ভার বহন করা কষ্টকর ছিল। জবসের জন্মদাত্রী মাকে তাঁরা কথা দিয়েছিলেন, ছেলেটাকে ভালো কোথাও পড়াবেন। সেই কথা রক্ষা করতে রিড কলেজেই ভর্তি করালেন জবসকে। কিন্তু এক সেমিস্টারের বেশি আর এগোতে পারেননি জবস। ঝরে পড়েন। যদিও তিনি পরবর্তীতে কলেজ ছেড়ে দেন তার পরেও তিনি  ক্যালিগ্রাফীসহ আরো কিছু ক্লাসে যোগদান করেছিলেন।এই সম্পর্কে তার বক্তব্য ছিল “যদি আমি ওই কোর্সে না যেতাম তবে ম্যাকের কখনোই বিভিন্ন টাইপফেস বা সামঞ্জস্যপূর্ণ ফন্টগুলো থাকতো না।” ক্যালিগ্রাফিতে উৎসাহ থাকার জন্য তিনি তার বন্ধুদের সাথে থেকে সে ক্লাসগুলো করেন । এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার কোন রুম ছিল না, বন্ধুদের রুমের ফ্লোরে আমি ঘুমাতাম। মানুষের ব্যবহৃত কোকের বোতল ফেরত দিয়ে আমি পাঁচ সেন্ট করে রোজগার করতাম, যেটা দিয়ে আমি খাবার কিনতাম। প্রতি রোববার রাতে আমি সাত মাইল হেঁটে হরেকৃষ্ণ মন্দিরে যেতাম শুধু একবেলা ভালো খাবার খাওয়ার জন্য।’

১৯৭৪ সালে জবস ক্যালির্ফোনিয়াতে পুনরায় চলে আসেন। এ সময় তিনি নিয়মিত স্টিফেন ওজনিয়াকের সাথে হোমব্রিউ কম্পিউটার ক্লাবের সভাগুলোতে উপস্থিত থাকতেন এবং ভিডিও গেমস নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আটারিতে টেকনিশিয়ান হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন। তিনি এসময় মূলত ভারতে যাবার জন্য অর্থ জমানোর চেষ্টা করছিলেন। আর তাই আলোকিত জীবন গড়তে মাত্র ১৯ বছর বয়সে ঘর ছেড়েছিলেন স্টিভ জবস। চলে এসেছিলেন ভারতে। সেখানে নিম কারোলি বাবার সাথে সাক্ষাত্‍ করার জন্য জবস তার কৈঞ্চি আশ্রমে যান রিড কলেজের বন্ধু ড্যানিয়েল কোটকেকে সাথে নিয়ে। কিন্তু তা প্রায় জনশূন্য অবস্থায় ছিল, কারণ নিম কারোলি বাবা ১৯৭৩ সালের সেপ্টেম্বরে মারা যান। এরপর তারা চলে যান হরিয়াখান বাবার আশ্রমে।

78507.122173-Steve-Jobs-e-Daniel-Kottke
স্টিভ জবস্‌ এবং তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু ড্যানিয়েল কোটকে

ভারতে তারা কয়েকবার বাস ভ্রমণ করেন। দিল্লি থেকে উত্তর প্রদেশ, সেখান থেকে ফিরে হিমাচল প্রদেশ এরপর পুনরায় দিল্লি ফিরে আসেন।সাত মাস অবস্থানের পর জবস ভারত ত্যাগ করেন। ভারত থেকে ফেরার পর জবসের নতুন আবির্ভাব ঘটে। তার মস্তক মুন্ডিত ছিল এবং তিনি ঐতিহ্যবাহী ভারতীয় পোশাক পরিহিত অবস্থায় ছিলেন। এছাড়া তিনি বৌদ্ধধর্মের অনুসারি হয়ে ওঠেন। তিনি রপ্ত করেছিলেন ভিন্ন ধারার জীবনযাপন। রীতিমতো উপবাস করতেন। ফলমূল খেয়ে কাটিয়ে দিতেন দিনের পর দিন।

লেখক : তামান্না নিশাত রিনি

২য় ও শেষ পর্ব